চট্টগ্রামের পাঠকপ্রিয় অনলাইন

চট্টগ্রাম নগরীর বাকলিয়ায় ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রীকে গলাকেটে হত্যা

সিটিজি বাংলা,

 

 

চট্টগ্রাম নগরীর বাকলিয়া থানাধীন লায়লা ভবনের নিজ বাসায় দুর্বৃত্তরা এক কিশোরীকে গলাকেটে হত্যা করার খবর পাওয়া গেছে।

 

২৭ জুন বুধবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে এমন মর্মান্তিক এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। বাকলিয়ার সৈয়দশাহ রোডের ল্যান্ডমার্ক সোসাইটির লায়লা ভবনের ষষ্ঠ তলায় নিজ বাসা লাশ উদ্ধার করে তার মা।

 

দুর্বৃত্তদের হাতে নিহত ওই কিশোরীর নাম ইলহাম (১২) ইলহাম একই এলাকার মো. নাছিরের মেয়ে এবং সে নগরীর মেরন সান স্কুল অ্যান্ড কলেজের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী বলে জানা গেছে। ইলহাম ৬ষ্ট শ্রেণীর ছাত্রী ছিলেন। জানা যায়, সকালে তার ছোটভাইকে স্কুলে নিয়ে যান মা নাসরিন আক্তার মা আর বাবা মো. নাসির উদ্দিন সৌদী আরব প্রবাসী।তাদের গ্রামের বাড়ী সাতকানিয়া উপজেলার ঢেমশা ইউনিয়নে।

 

বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি প্রনব জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্ত করে খুনীদের খুঁজে বের করতে পারবো। কিশোরীর মরদেহের ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এছাড়াও খবর পেয়েই ছুটে যান সিআইডি, পিবিআই ও নগর গোয়েন্দা পুলিশ। তারা সকলেই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছেন।

 

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, নিহত ইলহামকে বাসায় রেখে আরেক ছেলে সন্তানকে স্কুলে দিতে যান তার মা।

৯ টার দিকে বাসায় ফিরে ঘরের দরজা চাপানো অবস্থায় পান নিহতের মা। পরে ইলহামের ঘরে গিয়ে তাকে বালিশ চাপা অবস্থায় শোয়ানো দেখতে পান।

অনেক ডাকাডাকি করেও সাড়া না পেয়ে বালিশ তুলে দেখা যায় রক্তে ভেসে যাচ্ছে। তখন তার মা চিৎকার দিলে পাশের বাসা থেকে অন্যান্যরা ছুটে আসেন।

তাৎক্ষণিক তিনি মেয়েকে নিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

 

নিহতের মা নাসরিন জানান, তাদের তিন কক্ষের বাসায় তিন মেয়ে ও শাশুড়িকে নিয়ে তারা থাকতেন। ঈদে সাতকানিয়ায় গ্রামের বাড়ি যাওয়ার পর এখনও ফেরেননি নিহতের দাদী বা তার শাশুড়ি। আলমারি থেকে তাদের বেশ কিছু গয়না খোয়া গেছে বলেও তিনি দাবি করেন।

READ  জার্মানিকে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় ঘন্টা বাজিয়ে দিল দক্ষিণ কোরিয়া

 

এদিকেপ্রতিবেশীরা জানান, মেয়ের এ অবস্থা দেখে মা নাসরিন আক্তার খুশবু নিজেই ছুরি দিয়ে অাত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। এতে তার হাত কেটে যায়।

 

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপ পরিদর্শক (এএসআই) শীলব্রত বড়ুয়া বলেন, ‘ইলহাম নামের ওই কিশোরীকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে নিয়ে আসে তার মা, তবে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে হাসপাতালে আনার পর মৃত ঘোষণা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*