চট্টগ্রামের পাঠকপ্রিয় অনলাইন

স্নায়ুক্ষয়ী টাইব্রেকার পরীক্ষায় ডেনমার্ককে বিদায় দিয়ে সেরা আটে ক্রোয়েশিয়া

সিটিজি বাংলা: স্পোর্টস ডেস্ক:

 

ক্রোয়েশিয়া-ডেনমার্ক ম্যাচের শুরুতে নোভগোরাদে গ্যালারির দর্শকেরা তখনো থিতু হয়ে বসেননি। এরই মধ্যে গোল! সেটাও মাত্র ৬১ সেকেন্ডের মাথায়। ডান প্রান্ত থেকে ক্রোয়াট বক্সে লম্বা থ্রো বাড়িয়েছিলেন ডেনিশ ফুলব্যাক ইয়েনাস কনুদসেন। বলটা ঠিকমতো ‘ক্লিয়ার’ করতে পারেনি ক্রোয়াট রক্ষণ। জটলার মধ্যে থেকে শট নিয়েছিলেন ম্যাথিয়াস ইয়ুর্গেনসন। সেটা গোলে পরিণত হওয়ার পেছনে ক্রোয়াট গোলরক্ষক দানিয়েল সুবাসিচের অবদান রয়েছে।

 

সুবাসিচ আরেকটু ক্ষিপ্র প্রতিক্রিয়া দেখালে শুরুতেই ক্রোয়েশিয়াকে পিছিয়ে পরতে হতো না। ১৯৯৮ টুর্নামেন্টে ব্রায়ান লাউড্রপের পর এই প্রথম বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে ডেনমার্কের হয়ে গোল করলেন ইয়ুর্গেনসন। তবে ডেনমার্ক এই এগিয়ে যাওয়া টিকে ছিল মাত্র মিনিট দুয়েক। ডান প্রান্ত থেকে উড়ে আসা ক্রস ঠিকমতো ‘ক্লিয়ার’ করতে পারেনি ডেনিশ রক্ষণভাগ। বক্সের ভেতর থেকে ক্রোয়াট স্ট্রাইকার মারিও মানজুকিচ শট নিয়েছিলেন। পায়ে ঠিকভাবে লাগাতে না পারলেও বলটা ঠিকই জালে আশ্রয় নিয়েছে।

 

ম্যাচের ৪ মিনিটের মধ্যে দুই গোল দেখে দর্শকেরা হয়তো আশায় নড়েচড়ে বসেছিলেন। গোল উৎসব হবে! সেই কিন্তু আশায় গুঁড়েবালি। দুই দলের খেলোয়াড়েরাই বিশেষ করে ক্রোয়াট শিবির বেশ কিছু দারুণ সুযোগ সৃষ্টি করেও এগিয়ে যেতে পারেনি। বিশ্বকাপের ইতিহাসে এ নিয়ে দ্বিতীয় ম্যাচে দুই দলই ৪ মিনিটের মধ্যে গোলের মুখ দেখল।

 

অতিরিক্ত সময় পর্যন্ত ম্যাচটা ১-১ গোলে অমীমাংসিত ছিল। এর পর শুরু হয় স্নায়ুক্ষয়ী টাইব্রেকার-পরীক্ষা। স্নায়ুক্ষয়ী এই টাইব্রেকারে প্রথম শটটা নেন ডেনিশ তারকা ক্রিশ্চিয়ান এরিকসেন। তাঁর শট ডান দিকের গোলপোস্টে লেগে লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ক্রোয়েশিয়ার হয়ে প্রথম মিলান বাদেলির নেওয়া প্রথম শটটা অবশ্য রুখে দেন ক্যাসপার স্মেইকেল। দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে ডেনিশদের টাইব্রেকার-পরীক্ষা পর্যন্ত তুলে এনেছিলেন স্মেইকেল।

 

এরপর ডেনিশ অধিনায়ক সিমোন ক্যার লক্ষ্যভেদ করেন। ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় ডেনমার্ক। ক্রামানিক এসে লক্ষ্যভেদ করে ক্রোয়েশিয়াকে ১-১ ব্যবধানে সমতায় ফেরান। ক্রন-দেলি ডেনমার্ককে আবারও এগিয়ে দেন ২-১ ব্যবধানে। মডরিচ এসে এবার আর কোনো ভুল করেননি। লক্ষ্যভেদ করে ম্যাচে টিকিয়ে রাখেন ক্রোয়েশিয়াকে। কিন্তু নাটকের তখনো অনেক বাকি ছিল।

READ  কুমিল্লায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

 

লাস শোনের শট রুখে দেন ক্রোয়াট গোলরক্ষক সুবাসিচ। পরের দফায় ক্রোয়াট জোসিপ পিভারিচের শটও ঠেকিয়ে দেন স্মেইকেল। ২-২ ব্যবধানে ম্যাচ গড়ায় সাডেন ডেথে। এই অবস্থায় নিকোলাই হোর্গেনসনকেও রুখে দেন সুবাচিস। অর্থাৎ পরের শটে ক্রোয়েশিয়া লক্ষ্যভেদ করলেই তাঁরা উঠে যাবে কোয়ার্টার ফাইনালে। রাকিতিচ এসে লক্ষ্যভেদ করে ক্রোয়েশিয়াকে শেষ পর্যন্ত তুলেছেন শেষ আটে। টাইব্রেকারে ৩-২ গোলের এই জয়ে ১৯৯৮ বিশ্বকাপের পর প্রথমবারের মতো শেষ আটের দেখা পেল ক্রোয়েশিয়া। আর বিদায় নিতে হয়েছে ডেনমার্কের।

 

 

এর আগে ফিফার রাশিয়া বিশ্বকাপ ২০১৮ থেকে একের পর এক ফেবারিটের বিদায় ঘটছে । প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায় নিয়েছে জার্মানি। দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে বিদায় নিলো ফেভারিট আর্জেন্টিনা আর পর্তুগালের মত দল। দিনের প্রথম ম্যাচে রাশিয়ার কাছে টাইব্রেকারে হেরে বিদায় নিলো আরেক ফেবারিট স্পেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*