চট্টগ্রামের পাঠকপ্রিয় অনলাইন

তারেককে ‘বলির পাঠা’ বানানো হচ্ছে : শিবির

শিবির নেতা তারেকুল আলমকে ব্লগার নিলয় হত্যা মামলায় গ্রেফতারের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির চট্রগ্রাম উওর জেলা নেতৃবৃন্দ।

এক বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, তারেকুল আলমকে ১৪ নভেম্বর শনিবার রাত ১১টায় ঘুমন্ত অবস্থায় বাসা থেকে আটক করে রবিবার বিকেল পর্যন্ত থানা হাজতে আটকে রেখে পাচলাইশ থানা পুলিশ। পরে তাকে ডিবি পুলিশের হাতে তুলে দেয়। ডিবি পুলিশ তাকে ঢাকায় খুন হওয়া ব্লগার নিলয় হত্যাকান্ড মামলায় গ্রেফতার দেখায়।

অথচ ব্লগার নিলয় খুন হওয়ার কয়েকদিন পরেই নিহতের স্ত্রী খিলগাঁও থানায় ১১/৭/১৫ নং যে মামলাটি দায়ের করেছেন তার এজাহারে তারেকের নাম নেই। এ ঘটনার সাথে তারেক জড়িত থাকতে পারে এমন কথা নিহতরে আত্বীয় স্বজন, তদন্ত কর্মকর্তা বা অন্য কেউ সামান্যতম উচ্চারন না করলেও এত দিন পরে এসে নিরীহ মেধাবী ছাত্র তারেককে এই মামালায় জড়ানো হয়েছে। এটা সম্পূর্ণ পরিকল্পিত ও সাজানো।

মূলত সরকার ও পুলিশ প্রকৃত হত্যাকারীদের গ্রেফতার করতে না পেরে নিজেদের ব্যর্থতা আড়াল করতে এই মেধাবী ছাত্রকে বলির পাঠা বানাতে চাইছে। এটি শাক দিয়ে মাছ ঢাকার অপকৌশল মাত্র। আমরা দৃঢ়ভাবে বলতে চাই ছাত্রশিবিরের কোন নেতা-কর্মী এই ধরনের কোন কাজের সাথে জড়িত নয়। সরকার শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতেই শিবির নেতা তারেককে গ্রেফতার করেছে।

নেতৃবৃন্দ বলেন, এই অমানবিক ও দায়িত্বহীন আচরণ এক দিকে যেমন অনেক নিরীহ ছাত্রের জীবন ধ্বংস করে দিচ্ছে অন্য দিকে আইনশৃঙ্খলা বাহীনির ভাব মর্যাদা ক্ষুন্ন করছে। যা একটি রাষ্ট্রের জন্য চরম লজ্জাজনক। আমরা অবিলম্বে নিরাপরাধ শিবির নেতাকে মিথ্যা মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে তার মুক্তির দাবী জানাচ্ছি। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

READ  চলন্ত ট্রেনে ছিনতাইকারীর হামলা, আটক ২

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*