চট্টগ্রামের পাঠকপ্রিয় অনলাইন

মুজাহিদের চূড়ান্ত রায় আজ

সিটিজি বাংলা২৪ ডেস্ক:: জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের ভাগ্য নির্ধারণ হবে আজ। তার রিভিউ আবেদনের ব্যাপারে আজ বেলা সাড়ে ১১টায় আদেশ দেবেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। এর মাধ্যমে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় শেষ হবে তার বিচার প্রক্রিয়া। আপিল বিভাগ মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখলে এরপর শুধু প্রেসিডেন্টের কাছে ক্ষমা চাওয়ার সুযোগ থাকবে জামায়াতের এ শীর্ষ নেতার।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চে গতকাল মুজাহিদের রিভিউ আবেদনের ওপর শুনানি হয়। বেঞ্চের অন্য সদস্যরা ছিলেন বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। গতকাল সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত মুজাহিদের পক্ষে রিভিউ আবেদনের শুনানিতে অংশ নেন আসামিপক্ষের প্রধান আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে অংশ নেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। শুনানিতে খন্দকার মাহবুব হোসেন মুজাহিদের মৃত্যুদণ্ড বিবেচনার আবেদন জানান। অন্যদিকে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আসামির মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখার পক্ষে মত ব্যক্ত করে বলেন, মুজাহিদের দণ্ড বহাল রাখা না হলে জাতি হতাশ হবে।

এদিকে মুজাহিদের রিভিউর রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে সারাদেশে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। রাজধানী ঢাকাসহ কয়েকটি জেলায় বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ২০১৩ সালের ১৭ই জুলাই মুজাহিদকে ফাঁসির রায় দেন বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। একই বছরের ১১ই আগস্ট ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন মুজাহিদ। তবে সর্বোচ্চ সাজার প্রেক্ষিতে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল করেনি। চলতি বছরের ২৯শে এপ্রিল থেকে ২৭শে মে ৯ কার্যদিবসে আপিল শুনানি শেষ হয়। গত ১৬ই জুন মুজাহিদের আপিল খারিজ করে বুদ্ধিজীবী হত্যার দায়ে ট্রাইব্যুনালের দেয়া মৃত্যুদণ্ডের রায় বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। ৩০শে সেপ্টেম্বর মুজাহিদের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করে আপিল বিভাগ।

গতকাল সকাল ৯টার কিছু পরে আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের রিভিউ আবেদনের শুনানি শুরু হয়। বেলা ১১টার কিছু আগে শুনানি শেষ করেন আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। এরপর শুনানি শুরু করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। এগারটায় বিরতি দিয়ে কিছুক্ষণ পর আবারও শুনানিতে অংশ নেন অ্যাটর্নি জেনারেল। শুনানি শেষে সিনিয়র অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, মৃত্যুদণ্ডের সাজা মুজাহিদের প্রাপ্য নয়। স্বাধীনতার পরে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড নিয়ে ৪২টি তদন্ত হয়েছে। কিন্তু কোথাও আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের নাম নেই। তিনি বলেন, ট্রাইব্যুনালের সাজাপ্রাপ্ত অন্য আসামিদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকলেও মুজাহিদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ নেই। বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের দায়ভার তার ওপর বর্তায় না। আশা করি মৃত্যুদণ্ডের বিষয়টি আপিল বিভাগ বিবেচনা করবেন। অন্যদিকে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের বলেন,   একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে মোহাম্মদপুর ফিজিক্যাল ট্রেনিং ক্যাম্পে গোলাম আযম ও মতিউর রহমান নিজামীর সঙ্গে আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদকেও দেখা গেছে। ট্রাইব্যুনালের সাক্ষীরাও সেটা উল্লেখ করেছেন। তিনি সে সময় ইসলামী ছাত্রসংঘের শীর্ষ নেতা হিসেবে বক্তব্য-বিবৃতি দিয়েছেন। তার বক্তব্যের প্রেক্ষিতে হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে। সুতরাং সরাসরি হত্যাকাণ্ডে অংশ নিতে হবে এমন নয়। তিনি পরিকল্পনা, উস্কানি, সহযোগিতার মাধ্যমে হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করতে পারেন। অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় বুদ্ধিজীবীদের প্রতি যে আক্রোশ ছিল তা এখনও শেষ হয়নি। অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, হাসান আজিজুল হকদের মতো বুদ্ধিজীবীদের হুমকি দেয়া হচ্ছে। প্রতিকার না হলে এরা শুধু হুমকিই দিচ্ছে না একাত্তরে যা করেছে তা আবারও করবে। এ বিষয়টি আমি শুনানিতে উল্লেখ করেছি। তাই মুজাহিদের মৃত্যুদণ্ড বহাল না থাকলে আমরা হতাশ হবো।
সালাউদ্দিন কাদেরের রিভিউ আবেদনের শুনানি আজ

READ  যে ৫ টি কারণে পরিবারের মেজো সন্তানেরা সবার চাইতে আলাদা

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর রিভিউ আবেদনের শুনানি অনুষ্ঠিত হবে আজ। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে গঠিত ৪ সদস্যের বেঞ্চে এ শুনানি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে ২০১৩ সালের ১লা অক্টোবর বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন বিচারপতি এটিএম ফজলে কবিরের নেতৃত্বে গঠিত ৩ সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। রায়ের বিরুদ্ধে ওই বছরের ২৯শে অক্টোবর আপিল করেন তিনি। চলতি বছরের ১৬ই জুন শুরু হয়ে ৭ই জুলাই পর্যন্ত ১৩ কার্যদিবসে আপিল শুনানি শেষ হয়। ২৯শে জুলাই সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ফাঁসির চূড়ান্ত রায় দেন বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে গঠিত আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চ। পরে ৩০শে সেপ্টেম্বর সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ পায়। এরপর নির্ধারিত ১৫ দিনের মধ্যেই রিভিউ আবেদন করেন সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*