চট্টগ্রামের পাঠকপ্রিয় অনলাইন

শিবির সন্দেহে ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা

সিটিজি বাংলা২৪ ডটকম :: যশোরে আজ (২৩ নভেম্বর) সোমবার বিকেলে হাবিবুল্লাহ (২২) নামের এক কলেজ শিক্ষার্থীকে ইসলামী ছাত্রশিবিরের কর্মী সন্দেহে পিটিয়ে  হত্যা করা হয়েছে। নিহত হাবিবুল্লাহ শার্শা উপজেলার তেবাড়িয়া এলাকার নিয়ামত আলীর ছেলে। আহত করা হয় কামরুল আহসান (২২) ও আল মামুন (২২) নামে তাঁর দুই সহপাঠীকে। তাদের যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে মামুনের অবস্থা গুরুতর বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।
ছাত্রলীগের কর্মীরা ওই তিনজনকে পিটিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয় বলে জানিয়েছেন যশোর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শিকদার আককাস আলী।হতাহতরা যশোর এমএম কলেজের অর্থনীতি বিভাগের স্নাতক (সম্মান) তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। তাঁরা কলেজের পূর্ব পাশে নির্ঝর নামে একটি মেসে থাকতেন।

আহত আল মামুন জানান, বিকেল ৩টার দিকে চার-পাঁচজন লোক এসে তাঁদের তিনজনকে পাশের আশিক ছাত্রাবাসে নিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করে।

যশোর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শিকদার আককাস আলী জানান, ছাত্রলীগের কর্মীরা ওই তিনজনকে পিটিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান হাবিবুল্লাহ। তিনজনই শিবিরের কর্মী বলে শোনা যাচ্ছে। পরে সংশ্লিষ্ট ছাত্রাবাসে অভিযান চালিয়ে একটি ককটেল ও শিবিরের কিছু বইপত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

পিটুনির অভিযোগ অস্বীকার করে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বিপুল কাছে দাবি করেন, ছাত্রশিবিরের নির্ঝর মেসে প্রত্যেক শুক্রবার গোপন মিটিং হতো। কলেজ এলাকার লোকজন বিষয়টি জানতে পেরে সেখানে হামলা চালায়। এর সঙ্গে ছাত্রলীগের কোনো সম্পৃক্ততা নেই।

আহত কামরুলের মা আনোয়ারা বেগম দাবি করেছেন, তাঁর ছেলে কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন না। তিনদিন বাড়িতে থেকে আজ যশোর এসেছিলেন পরীক্ষা দেওয়ার জন্য।

তবে যশোর জেলা জামায়াতে ইসলামীর শীর্ষ পর্যায়ের এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, নিহত ও আহতরা শিবিরের কর্মী। স্থানীয় ছাত্রলীগের কর্মীরা তাঁদের ওপর হামলা চালায়।

READ  তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারে আয় হচ্ছে ১০০ মিলিয়ন ডলার

আহত কামরুল আহসান বাঘারপাড়া উপজেলার ছোটখুদরা গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে এবং আল মামুন মাগুরার শালিখা উপজেলার সীমাখালীর আতিয়ার রহমানের ছেলে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*