চট্টগ্রামের পাঠকপ্রিয় অনলাইন

অন্যান্য

যে সমস্ত খাদ্যাভাস মন খারাপ হওয়া থেকে দূরে রাখবে

সিটিজি বাংলা, স্বাস্থ্য বিভাগ:

মন খারাপ (প্রতিকী ছবি)

মনটা হলো শরীরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও প্রধান অংশ। কারণ মন খারাপ হলে তার প্রভাব পড়ে আমাদের শরীরেও। দীর্ঘ সময় ধরে ডিপ্রেশনের মতো রোগে ভুগলে ব্রেনে প্রদাহের মাত্রা মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পায়। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ব্রেন সেলের মারাত্মক ক্ষতি হয়। আর এমনটা হতে থাকলে অ্যালঝাইমারস, ডিমেনশিয়া এবং পার্কিসনের মতো জটিল মস্তিষ্কঘটিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়। সেই সঙ্গে আয়ুও কমে চোখে পরার মতো। এমনকি হতে পারে মৃত্যুরও কারণ!

 

এমনকিছু খাবার আছে যা প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় থাকলে মন খারাপ আর কাছে ঘেঁষতেই পারে না। সেই সঙ্গে একাধিক মারণ রোগের প্রকোপ কমাতেও সময় লাগে না।

চলুন জেনে নেয়া যাক, মন খারাপ থেকে দূরে থাকতে চাইলে কোন খাবারগুলো খাবেন-

 

দই খেলে সরোটোনিন হরমোনের ক্ষরণ বেড়ে যায়, যা স্ট্রেস কমানোর পাশাপাশি ব্রেন পাওয়ার বাড়াতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। আর একবার ব্রেন পাওয়ার বেড়ে গেলে অ্যাংজাইটির মতো সমস্যা তো কমেই, সেইসঙ্গে পড়াশোনাতেও উন্নতি ঘটে।

নারিকেলে উপস্থিত বেশ কিছু উপকারি ফ্যাট শরীরে প্রবেশ করার পর মস্তিষ্কের অন্দরে ফিল গুড হরমোনের ক্ষরণ বাড়িয়ে দেয়। সেই সঙ্গে ব্রেন পাওয়ার এতটা বাড়িয়ে দেয় যে স্ট্রেস এবং মানসিক অবসাদের প্রকোপ তো কমেই, সেই সঙ্গে বুদ্ধি এবং স্মৃতিশক্তিরও উন্নতি ঘটে।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ ফল এবং সবজি মানসিক অবসাদের প্রকোপ কমাতে নানাভাবে কাজে এসে থাকে। শুধু তাই নয়, মন খারাপ, অ্যাংজাইটি এবং ডিপ্রেশনের মতো ভয়ঙ্কর রোগকে দূরে রাখতেও এই উফাদানটি বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

মাছে উপস্থিত ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড, ভিটামিন বি, বি৬ এবং বি১২ এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। শুধু তাই নয়, এই উপাদানগুলি মানসিক অবসাদের মতো রোগের আক্রমণ থেকে বাচ্চাদের বাঁচাতেও নানাভাবে সাহায্য় করে থাকে।

টমাটোতে উপস্থিত লাইকোপেন নামক এক ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরে প্রবেশ করার পর মন খারাপকে সমূলে উৎখাত করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। ফলে মানসিক অবসাদের মতো ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে সময় লাগে না।

বাদামে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন বি২, ভিটামিন ই, ম্যাগনেসিয়াম এবং জিঙ্ক। এই সবকটি উপাদান সেরাটোনিন হরমোনের ক্ষরণ বাড়িয়ে দেয়। সেইসঙ্গে শরীরে উপস্থিত ক্ষতিকর টক্সিক উপাদানদের বার করে দেয়। ফলে কোনোভাবেই স্ট্রেস ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না।

পাতি লেবু, কমলা লেবু এবং মৌসাম্বি লেবুর মতো সাইট্রাস ফলের শরীরে মজুত রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন সি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং প্রকৃতিক সুগার, যা স্ট্রেস হরমোনের ক্ষরণ তো কমায়ই, সেই সঙ্গে মানসিক অবসাদকে দূরে রাখতেও বিশেষ ভূমিকা নেয়।

নিয়মিত ব্রাউন রাইস বা হোল গ্রেনের মতো খাবার খেলে শরীরে কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেটের মাত্রা বৃদ্ধি পায়, যা নার্ভাসনেস, অ্যাংজাইটি এবং ইনসমনিয়ার মতো সমস্যা কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

তোমরা ক্লাসে ফিরে যাও, যা করেছ তা ইতিহাস হয়ে থাকবে: সাকিব আল হাসান

বাংলাদেশের রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার প্রতিবাদে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে পড়াশোনায় মনোনিবেশ করার আহ্বান জানিয়েছেন জাতীয় দলের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি  অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

৩ জুলাই শুক্রবার সন্ধ্যার পরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজের ভেরিফায়েড পেইজে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি এ আহ্বান জানান।

 

নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে সাকিব আল হাসান বলেছেন, “ক্লাসে ফিরে পড়াশোনায় মনোনিবেশ করতে। তোমরা যা করেছ তা এ দেশে ইতিহাস হয়ে থাকবে। এ অর্জন সফল হবে তোমাদের পড়ার টেবিলে ফিরে যাওয়ার মাধ্যমে।”

 

সাকিব আল হাসানের পুরো স্ট্যাটাসটি হুবহু এখানে তুলে ধরা হলো:

“আমি এখন ফ্লোরিডায় আছি। আজ এক গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে আমার তরুণ ফ্যানদের উদ্দেশে কিছু বলতে চাই।

 

নিহত দুই শিক্ষার্থী

গত ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় দুই স্কুলশিক্ষার্থী দিয়া ও আবদুল করিম নিহত হওয়ার ঘটনায় আমি প্রচণ্ড মর্মাহত ছিলাম। কিন্তু যখন দেখলাম তার সহপাঠী থেকে শুরু করে সারা দেশের ছাত্রছাত্রীরা দোষীদের শাস্তি দাবি ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন শুরু করেছে, তখন গর্ববোধ করেছি বাংলাদেশের একজন নাগরিক হিসেবে। দেশে থাকলে আমিই তোমাদের অটোগ্রাফ নেয়ার জন্য চলে আসতাম।

 

তোমাদের সাধুবাদ জানিয়ে বলতে চাই, তোমাদের দাবি কার্যকর হচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিহত পরিবারকে আর্থিক সহায়তা ছাড়াও নিরাপদ সড়ক আইন করতে আন্তরিকভাবে কাজ করছেন। ইতিমধ্যে অভিযুক্ত পরিবহনের রুট পারমিট বাতিলসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ অবস্থায় তোমাদের কাছে বিনীত অনুরোধ করব, ক্লাসে ফিরে পড়াশোনায় মনোনিবেশ করতে। তোমরা যা করেছ তা এ দেশে ইতিহাস হয়ে থাকবে। এ অর্জন সফল হবে তোমাদের পড়ার টেবিলে ফিরে যাওয়ার মাধ্যমে। তোমাদের দাবি পূরণ হয়েছে এবং হচ্ছে। ব‍্যত্যয় ঘটলে আমাকে পাবে তোমাদের সঙ্গে।”

 

গত ২৯ জুলাই জাবালে নূর পরিবহনের দু’টি বাসেররেষারেষিতে বিমানবন্দর সড়কে রাস্তার পাশে দাঁড়ানো একদল শিক্ষার্থীর উপর উঠে যায়। তাতে শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হলে ক্ষোভে ফেটেপড়ে তাদের সহপাঠীরা।

 

এরপর নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের পদত্যাগ এবং ঘাতক চালকের ফাঁসিসহ ৯ দফা দাবিতে বৃহস্পতিবার ছুটির দিনে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে।

বর্তমান সরকারের পক্ষ থেকে দাবি মানার ঘোষণা দেয়া হলেও শিক্ষার্থীরা বলছে, দাবি আদায় না করে তারা ক্লাসে ফিরবে না।

চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে ঘর থেকে বিপুল আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার, ৩ নারীসহ গ্রেফতার ৪

সিটিজি বাংলা, ফটিকছড়ি প্রতিনিধি:

 

 

চট্টগ্রাম জেলার ফটিকছড়িতে বিপুল পরিমান অাগ্নেয়াস্ত্র,বুলেট, চাপাতি উদ্ধার করেছে স্থানীয় থানা পুলিশ।

৭ জুলাই শনিবার সকাল এগারোটায় অভিযান চালিয়ে উপজেলার ফটিকছড়ি পৌরসভার মুনাফখিল ধুরুং জব্বারিয়া স্কুল সংলগ্ন অালকি বাপের বাড়ি থেকে এসব উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ জানায়, উদ্ধার হওয়ার মধ্যে রয়েছে ১ টি পিস্তল, ৪ টি এলজি, ১৯ টি বুলেট, চাপাতি একটি, ছুরি ১ টি ও ৬ টি মোবাইল।

সিএনজি চালক মোহাম্মদ শফি প্রকাশ নকুলের ঘরে তার পুত্র এমদাদ উল্লাহ এসব অস্ত্র ঘরের অালমিরাতে রেখেছিল।

 

আগ্নেয়াস্ত্র রাখার অভিযোগে অাটককৃতরা হলো, সিএনজি অটোরিকশা চালক মো. শফির স্ত্রী মনোয়ারা বেগম (৫২), ছেলে এমদাদ উল্লাহ (২৫), আরেক ছেলে আমান উল্লাহর স্ত্রী রেনু আক্তার (৩২) ও তার মেয়ে সাকী আক্তার (১৯)।

 

এলাকাবাসীর জানিয়েছে, এমদাদ সম্প্রতি স্থানীয় সন্ত্রাসীদের সাথে চলাফেরা করতো। সিএনজি চালানোর পাশাপাশি নিজেকে যুবলীগের নেতা দাবী করতো সে।

 

ফটিকছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাকির হোসেন মাহমুদ বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে এক সিএনজি অটোরিকশা চালকের বাড়ির আলমিরা থেকে ব্যাগভর্তি অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। এসময় ৩ নারীসহ একই পরিবারের ৪ জনকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা জানিয়েছেন আনোয়ার নামে এক সন্ত্রাসী ব্যাগভর্তি অস্ত্রগুলো তাদের ঘরে রেখে গেছে। আনোয়ারকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে বলেও জানান ওসি।

ফটিকছড়ি থানার ওসি (তদন্ত) বিজন কুমার বড়ুয়া বলেন,স্থানীয় সন্ত্রাসী অানোয়ার হোসেন ওরফে অানো শাহ্ অস্ত্রগুলো তার ঘরে মজুদ রেখেছিল। সাম্প্রতিক সময়ে এই সিএনজি চালকের সাথে তার গভীর সখ্যতা গড়ে উঠে। সেই সুবাধে এলাকায় বেশ দাপট নিয়ে চলাফেরা করতো এই সিএনজি চালক এমদাদ। সিএনজিতে ইয়াবার বিভিন্ন চালান সরবরাহ করতো বলেও পুলিশের কাছে তথ্য আছে। অাটককৃতদের থানায় জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

আর উদ্ধারকৃত অস্ত্রশস্ত্রের মধ্যে রয়েছে-দুইটি একনলা বন্দুক, ২টি দেশিয় এলজি, ১টি পিস্তল, ৬ রাউন্ড গুলি, ১৩টি কার্তুজ, ২টি চাপাতি ও ১টি ছোরা জানায় এ পুলিশ কর্মকর্তা।

জটিল সমস্যা জম্ম দিতে পারে ইন্টারনেট আসক্তি

সিটিজি বাংলা, তথ্যপ্রযুক্তি:

 

 

 

আধুনিক ইন্টারনেটের যুগে ডুবে আছে মানুষের দল। প্রযুক্তি ও স্মার্টফোনের দাপটের এই যুগে মানুষ এখন বেশিরভাগ সময় ইন্টারনেটে ব্যয় করে থাকে।

প্রয়োজনে -অপ্রয়োজনে উভয় ক্ষেত্রেই ইন্টারনেটের ব্যবহার বাড়ছে। এর ফলে মানুষ হয়তো অনেক কিছু সহজে পেয়ে পাচ্ছে। ফলে তাদের জীবনযাত্রা হয়তো কোনো কোনো ক্ষেত্রে সহজ হয়ে উঠেছে। আবার ইন্টারনেটে অতিমাত্রায় আসক্তি থেকে ঘটছে নানা সমস্যা।

 

ইন্টারনেটে মাত্রাতিরিক্ত সময় ব্যয় করলে ঘনিষ্ঠজনরা অর্থাৎ পারিবারিক সম্পর্কে ফাটল ধরে বলে এক গবেষণায় দেখা গেছে। বয়োলজিকাল জার্নাল ‌’প্লাস ওয়ান’এ সম্প্রতি এক গবেষণা নিবন্ধ প্রকাশিত হয়। এতেই এসব কথা বলা হয়েছে।

 

 

ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে গবেষকদের মত, পারিবারিক বন্ধন দৃঢ় করতে ইন্টারনেটের জগত থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার দরকার নেই। তাদের পরামর্শ, একটা নির্দিষ্ট সময় ইন্টারনেট ব্যবহার করা ক্ষতির কিছু না। তবে সেটা যেনো কোনোভাবেই সপ্তাহে মোট ২৫ ঘণ্টার বেশি না হয় এ ব্যাপারে সতর্কবার্তা দিয়েছেন তারা।

 

 

 

গবেষণা নিবন্ধে দাবি করা হয়, সপ্তাহে ২৫ ঘণ্টার বেশি সময় ইন্টারনেটে থাকলে একটা সময় দেখা যাবে নিজের অজান্তেই পরিবার থেকে আলাদা হয়ে যাচ্ছেন।

 

 

এমনকি গবেষকদের মত, যারা সপ্তাহে ২৫ ঘণ্টার বেশি সময় ইন্টারনেটে ব্যস্ত থাকেন তারা একটা সময় পর একাকিত্বে ভোগেন। পরিবারের সকল সদস্যদের মধ্যে থেকেও তারা একাকী বোধ করেন। এর ফলে জন্ম নিতে পারে পরিবারের অপরাপর সদস্যদের অবিশ্বাস, সন্দেহ। ফলে ঘটতে পারে পারিবারিক অশান্তি।

থাইল্যান্ডে ১১ বছর বয়সী কনের সঙ্গে ৪১ বছর বয়সী ব্যক্তির বিয়ে নিয়ে চলছে চরম বিতর্ক

সিটিজি বাংলা,

 

 

সম্প্রতি মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডের সীমান্তবর্তী অঞ্চলে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। আর এতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েছে মুসলিম অধ্যুষিত দেশটি।

১১ বছর বয়সী কনের বরের বয়স ৪১ বছর। থাইল্যান্ডের ওই শিশুর সঙ্গে মালয় ব্যক্তির এ অসম বিয়ে নিয়ে চলছে চরম বিতর্ক।

 

ধর্মীয় আদালতের অনুমতি সাপেক্ষে মালয়েশিয়ায় ১৬ বছরের কম বয়সীরা বিয়ে করতে পারেন। তবে দেশটির নারী ও পরিবারবিষয়ক মন্ত্রণালয় বলছে, গত মাসে যে অসম বিয়ের ঘটনা ঘটেছে তাতে মালয়েশিয়ার ধর্মীয় আদালতের কাছ থেকে কোনো অনুমতি নেয়া হয়নি।

 

মালয়েশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী ওয়ান আজিজাহ ওয়ান ইসমাইল রোববার স্থানীয় এক গণমাধ্যমকে বলেন, আমাদের কর্মকর্তারা ওই মেয়েটির বাড়িতে গিয়েছিল এবং তার মায়ের সঙ্গে দেখা করেছে। আমরা এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য আরও অধিকতর প্রতিবেদনের জন্য অপেক্ষা করছি।

 

দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়, যদি এটা প্রমাণিত হয় যে, আদালতের অনুমতি না নিয়েই এ বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে, তাহলে বরের ৬ মাসের কারাদণ্ড হতে পারে। দেশটির মানবাধিকার কর্মীরা শিশু বিয়ে সংক্রান্ত আইনের সংস্কারের দাবি জানিয়েছেন।

 

 

দেশটির আইনজীবীরা বলছেন, মালয়েশিয়ায় প্রায় ১৬ হাজার বিবাহিত বালিকার বয়স ১৫ বছরের নিচে। সাঈদ আজমী আলহাবশী নামের এক শিশু অধিকার কর্মী বলেন, ‘১১ বছর বয়সী শিশুকে বিয়ে করা শিশু শিকার ও যৌন নির্যাতনের শামিল।’ মালয়েশিয়ায় সর্বোচ্চ চারটি বিয়ে অনুমোদিত।

 

আল হাবশী আরও বলেন, ওই ব্যক্তি এর আগে আরও দু’জন বালিকাকে বিয়ে করেছেন যাদের বাবা দরিদ্র রাবার চাষী।

 

এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ শিশু তহবিল-ইউনিসেফ। ইউনিসেফের মালয়েশিয়া প্রতিনিধি মেরিয়ানি ক্লার্ক-হ্যাটিং বলেন, ‘এ ঘটনা পীড়াদায়ক ও অগ্রহণযোগ্য।’ শিশু বিয়ে বন্ধ করতে যথোপযুক্ত পদক্ষেপ নিতে মালয়েশিয়া সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইউনিসেফ।

মৃত্যুর আগাম গন্ধ পান এই নারীর দাবী

 

সিটিজি বাংলা:  অস্ট্রেলিয়ার এই নারীর নাম আরি কালা। ২৪ বছরের এক নারী দাবি করেছেন, বিশেষ কোনো মুহূর্তে তিনি মৃত্যুর গন্ধ পান! আর তখনই তিনি বুঝতে পারেন, কাছের কোনো ব্যক্তির মৃত্যু আসন্ন। অস্ট্রেলিয়ার এই নারীর নাম আরি কালা।

জানা যায়, আরি কালা পেশায় একজন মনোবিদ। ১২ বছর বয়সে প্রথম নিজের ভেতরে এমন শক্তির সন্ধান পান তিনি। এক আত্মীয়ের মৃত্যুশয্যায় তিনি হঠাৎ আশ্চর্য এক গন্ধ পান। তিনি লক্ষ্য করেন, আর কেউ ওই গন্ধ পাচ্ছে না। কিছুদিন পরই ওই আত্মীয় মারা যান।

তিনি দাবি করেন, কোনো বিশেষ ব্যক্তির কাছে গেলে তিনি ওই গন্ধ পান। সেই ব্যক্তি কয়েকদিনের মধ্যেই মারা যান! এরপর ১ দশকেরও বেশি সময় কেটে গেছে। এ আশ্চর্য ক্ষমতায় বহু মৃত্যুকে অনুধাবন করেছেন তিনি। তিনি জানান, তার এই অভিজ্ঞতা একেবারেই বাস্তব।

তিনি বলেন, ‘আগে থেকে বোঝা যাক বা না যাক— সবার জন্যই মৃত্যু এক অবশ্যম্ভাবী গন্তব্য। ভাগ্যকে অতিক্রম করার ক্ষমতা কারো নেই।’

তিনি জানেন যে, মৃত্যুর আগাম আভাস পেলেও তাকে আটকানোর কোনো ক্ষমতা তার নেই। মনোবিদের কাজ করার আগে একটি সংস্থায় সেক্রেটারির কাজ করতেন তিনি। পরে বুঝতে পারেন এ কাজ তার জন্য নয়। এরপরই পেশা পরিবর্তন করেন।

জয় অপহরণ ও হত্যাচেষ্টা মামলার প্রতিবেদন ৪ জানুয়ারি

নিউজ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা ও পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়কে অপহরণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে দায়ের করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী ৪ জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত।

আজ (সোমবার) মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। তবে তদন্ত সংস্থা ডিবি পুলিশ প্রতিবেদন দাখিল না করায় ঢাকা মহানগর হাকিম সরাফুজ্জামান আনছারী নতুন এ দিন ধার্য করেন।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১১ সালের সেপ্টেম্বর মাসের আগে যেকোনো সময় থেকে এ পর্যন্ত বিএনপির সাংস্কৃতিক সংগঠন জাসাসের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ উল্লাহ মামুনসহ বিএনপি ও দলটির নেতৃত্বাধীন জোটভুক্ত অন্যান্য দলের উচ্চপর্যায়ের নেতারা (আসামি) রাজধানীর পল্টনের জাসাস কার্যালয়ে, আমেরিকার নিউইয়র্ক শহরে, যুক্তরাজ্য ও বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় একত্রিত হয়ে যোগসাজশে প্রধানমন্ত্রীর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়কে আমেরিকায় অপহরণ করে হত্যার ষড়যন্ত্র করেন।

ওই ঘটনায় ডিবি পুলিশের পরিদর্শক ফজলুর রহমান বাদি হয়ে ২০১৫ সালের ৩ আগস্ট পল্টন মডেল থানায় মামলাটি দায়ের করেন।