চট্টগ্রামের পাঠকপ্রিয় অনলাইন

পটিয়া

পটিয়ায় কালারপোলের মোহাম্মদ নগর প্রত্যয়ী সংঘের অভিষেক সম্পন্ন

সিটিজি বাংলাঃ

পটিয়ায় কালারপোলের মোহাম্মদ নগর প্রত্যয়ী সংঘের ১৮-২০ কার্যকরী পরিষদের অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে। ২৮ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকাল ১০ টায় সংগঠনের সভাপতি সালাউদ্দিন মোহাম্মদ ইমরানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান শুরু হয়।

এতে প্রধান প্রতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ সোলেইমান ইমন।

বিশেষ অতিথি ছিলেন, ৪নং কোলাগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি হাজ্বী মাহবুবুল হক চৌধুরী, ৪নং কোলাগাঁও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক আরিফ মাহমুদ চৌধুরী,মাদার্শা ইউনিয়ন পরিষদ সচিব রাকিবুল হাসান,মোহাম্মদ নগর অনির্বান ক্লাবের সহ-সাধারণ সম্পাদক মোঃ তৌফিকুর রহমান।

বক্তব্য রাখেন- সহ-সভাপতি মোঃ জামাল উদ্দিন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ রিফাত হোসেন রবিন,সাধারণ সম্পাদক মোঃ আজিজুল করিম মোঃ হাসান,মাহফুজ,নয়ন,সুজন,আমিন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি মোহাম্মদ নগর প্রত্যয়ী সংঘের নিত্য নতুন সৃজনশীল কার্মকান্ডের প্রশংসা করে বলেন, বর্তমান যুব সমাজের অবক্ষয় রোধে সামাজিক সংগঠনের গুরুত্ব অপরিসীম।

পটিয়ায় স্কুল ছাত্রী হত্যা ঘটনায় কথিত প্রেমিককে আসামি করে মামলা

সিটিজি বাংলা, পটিয়া প্রতিনিধি:

ছুরিকাঘাতে নিহত রিমা আক্তার

 

চট্টগ্রামের জেলার পটিয়ায় হাইদগাও উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী রিয়াকে হত্যাকান্ডের ঘটনায় কথিত প্রেমিক মাসুদকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন নিহত ছাত্রীর পিতা মঞ্জুরুল আলম।

৮ সেপ্টেম্বর শনিবার রাতে পটিয়া থানায় এই মামলা দায়ের করেন বলে জানান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ নেয়ামত উল্লাহ।

তিনি জানান, রিমা আক্তারকে হত্যার ঘটনায় প্রেমিক মাসুদকে প্রধান আসামি করে গত শনিবার রাতে নিহতের বাবা মঞ্জুরুল আলম বাদি হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। আসামী বর্তমানে পুলিশ হেফাজতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। সে সুস্থ্য হলে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

 

উল্লেখ্য, শনিবার দুপুরে পটিয়া উপজেলার দক্ষিণ ভূর্ষি রেললাইনের পাশে স্কুল ছাত্রী রিমা আক্তারকে ছুরিকাঘাতে খুন করে তার কথিত প্রেমিক মোঃ মাসুদ নিজেও গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে। আহত মাসুদ বর্তমানে চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে।

পটিয়ায় স্কুল ছাত্রীকে ছুরিকাঘাতে খুন: হত্যাকারীর আত্মহত্যার চেষ্টা

সিটিজি বাংলা, পটিয়া প্রতিনিধি:

ছুরিকাঘাতে নিহত স্কুল ছাত্রী

 

চট্টগ্রামের পটিয়ায় প্রেমিকের চুরিকাঘাতে এক স্কুল ছাত্রী খুন হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। সে সাথে গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যা চেষ্টা করে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকেও চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

৮ সেপ্টেম্বর শনিবার বেলা পৌনে ৩ টার দিকে দক্ষিণ ভূর্ষি ইউনিয়নের বেলতল রেললাইনের পাশে ওই স্কুলছাত্রী রিমাকে হত্যা কান্ডের ঘটনাটি ঘটে।

 

নিহতের নাম রিমা আকতার (১৫)। সে উপজেলার হাইদগাও মহাজন পাড়ার মঞ্জুরুল আলমের মেয়ে এবং হাইদগাৎও উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী বলে জানা গেছে। গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টাকারীর নাম মো. মাসুদ (২৫)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুর ৩ টার সময় এ সময় বেলতল রেললাইনের পাশে ওই স্কুল ছাত্রীর লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায় এবং নিহতের শরীরের উপর আরেক যুবককে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে ছিল। পরে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।

এদিকে , স্থানীয় সূত্রে খবর পেয়ে পটিয়া থানা পুলিশ স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে রেলওয়ে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছেন।

সেই সাথে গুরুতর আহত যুবককে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেছে বলে জানিয়েছেন পটিয়া থানা পুলিশ।

পটিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ নেয়ামত উল্লাহ ঘটনা সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাটা রেল লাইনের পাশে ঘটেছে। এটা রেল পুলিশের অধিনে। তবুও এলাকাবাসী খবর পুলিশকে খবরটি দিলে ঘটনাস্থলে পুলিশ যায়। মেয়েটির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে এবং ছেলেটিকে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।

কী কারণে এই হতাহতের ঘটনা ঘটেছে তাও এখনো জানা যায়নি বলে জানিয়ে তিনি বলেন, প্রেমে প্রত্যাখ্যাত হয়ে এ যুবক মেয়েটিকে ছুরিকাঘাতে হত্যার পর নিজের শরীরে ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেছিল বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। নিহত রিমার শরীরে বেশ কয়েকটি ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে। সেই সাথে যুবকটির শরীরে ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

 

এদিকে রেলওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজ ভূঁইয়া জানান, রক্তাক্ত অবস্থায় এক মেয়ের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এঘটনায় একটা ছেলে থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে শুনেছি। বিস্তারিত জানার জন্য আমরা ঘটনাস্থলে যাচ্ছি।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ পুলিশ ফাঁঁড়ির এ এস আই শীলব্রত জানান, পটিয়াতে এক স্কুলছাত্রীকে হত্যা করে নিজেই গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন মাসুদ নামে এক যুবক। তাকে গুরুত্বর অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর শোক দিবস পালন উপলক্ষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভা অনুষ্ঠিত

সিটিজি বাংলা, নগর প্রতিবেদক:

 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে জিইসি কনভেনশন হলে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সমাবেশের ছবি

 

চট্টগ্রাম নগরীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩ তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ উদ্দেগ্যে জিইসি কনভেনশন হলে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 

১২ আগস্ট রবিবার সকাল সাড়ে ১১টায় এ সভা শুরু হয় এবং চলে বিকেল পর্যন্ত। সভা শুরুর আগে জাতির জনকসহ ১৫ আগষ্টে নিহত সকলের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করেন।

 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বরাস্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। তিনি দুপুর ১২টা ১০ মিনিটে সভাস্থলে পৌছেন।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ১৫আগষ্ট বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতাসহ আমরা অনেকককে হারিয়েছি। তারপর আমাদের অপেক্ষা করতে হয়েছে ২১বছর। আমার দেখেছি যুদ্ধাপরাধীদের গাড়ীতে জাতীয় পতাকা উড়ছে। ১৫আগষ্টের পর বিদেশীরা আমাদের প্রশ্ন করেছিলো তোমার কেমন জাতি যে তোমরা জাতির পিতাকে হত্যা করো।

 

সভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশের মানুষ বিশ্বাস করে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে তার সুযোগ্য কণ্যা শেখ হাসিনা অবস্থান সৃষ্টি করেছে। তার নেতৃত্বে তার সুযোগ্য নেতৃবৃন্দরা দেশ উন্নয়নে সহযোগীতা করে যাচ্ছে। যার ফসলে দুর্নীতিতে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ান দেশ আজ সফল বাংলাদেশ। খাদ্য ঘাটতির দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ং সম্পুর্ণ। সন্ত্রাস জঙ্গিবাদের দেশ আজ শান্তি ও সুশৃঙ্খল এবং নিরাপত্তার বাংলাদেশ।

 

দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোসলেম উদ্দিনের সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় সভার প্রধান অতিথি ছিলেন বিশেষ অতিথি হিসেবে ভুমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ।

ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ বলেন, বিগত সকল সংসদ নির্বাচনের চাইতেও আগামী সংসদ নির্বাচন বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সকল নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টায় জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পুনরায় নির্বাচিত করে দেশ উন্নয়নে অব্যাহত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। পাশাপাশি আগামী সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার সব কয়টা আসন প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দেওয়ার কথা উল্লেখ করেন ভুমিমন্ত্রী।

এ সময় তিনি আরো বলেন,৭৫ এর ঘাতকরা দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্রের জন্যই জন্মগ্রহণ করেছে। এখনো তারা ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের শুসৃঙ্খল আন্দোলনেও তারা কৌশলে প্রবেশ করে সারাদেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির যে পায়তারা করেছে তাই প্রমাণ করে তারা এখনো ষড়যন্ত্রে লিপ্ত।

 

এছাড়াও চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এ সালাম, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন ও উপ দপ্তর সম্পাদক ব্যারিষ্টার বিপ্লব বড়ুয়াসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

 

উক্ত অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম নগর, দক্ষিন ও উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ,ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দদের যথেষ্ঠ উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।

পটিয়ায় ৫৫ বছরের অজ্ঞাত বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার

সিটিজি বাংলা, পটিয়া প্রতিনিধি:

 

অজ্ঞাত বৃদ্ধের লাশ

চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার বড়উঠান এলাকায় সড়কের পাশে আনুমানিক ৫৫ বছর বয়সী এক বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

৭ আগস্ট মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৫ টার দিকে স্থানীয়রা এ মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়।

পটিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মো. নেয়ামত উল্লাহ জানান, বড়উঠান এলাকায় সড়কের পাশে অজ্ঞাতপরিচয় এক প্রবীণের মরদেহ পড়ে থাকার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে লাশটি থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। ওই বৃদ্ধার পরিচয় নিশ্চিত করার চেষ্টা চলছে।

এদিকে ঘটনাস্থল থেকে প্রত্যক্ষদর্শী জানান, পটিয়া-আনোয়ারা প্রধান সড়কের বড়উঠান এলাকায় সড়কের পাশে আনুমানিক ৫৫ বছর বয়সী এক অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির মরদেহ পড়েছিল। বিষয়টি পুলিশকে খবর দেওয়ার পর তারা এসে লাশটি থানায় নিয়ে যায়। তিনি এক দিনমজুর বলে জানায় স্থানীয় লোকজন।

চট্টগ্রামের পটিয়ায় বিদ্যুতায়িত হয়ে রং মিস্ত্রীর মৃত্যু

সিটিজি বাংলা, পটিয়া প্রতিনিধি:

চট্টগ্রাম জেলার পটিয়ায় হরিণখাইন ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক রং মিস্ত্রী নিহতের খবর পাওয়া গেছে।

১০ জুলাই মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে মো. শওকত (২৪) নামের ওই রং মিস্ত্রী বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা যান। নিহত শওকতের বাড়ি আনোয়ারা উপজেলায় বলে জানা গেছে।

 

মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির সহকারি উপ-পরিদর্শক মো. আলাউদ্দিন তালুকদার জানান,পটিয়ার হরিণখাইন এলাকায় একটি বাড়িতে রঙের কাজ করার সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন মিস্ত্রী মো. শওকত।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুপুর ১২টার দিকে শওকতকে মৃত ঘোষণা দেন।

 

চমেক হাসপাতালের ২৮ জন চিকিৎসক বিভিন্ন উপজেলায় বদলি করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

সিটিজি বাংলা,

 

 

চট্টগ্রাম নগরীর সরকারি মেডিকেল কলেজ (চমেক)ও হাসপাতালের ২৮ জন চিকিৎসককে বিভিন্ন উপজেলার হাসপাতালগুলোতে বদলির আদেশ জারি করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

 

১০ জুলাই মঙ্গলবার এ আদেশ আসে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে বলেছেন বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. এএম মজিবুল হক।

 

ওই ২৮ জন চিকিৎসককে আগামী ১৫ জুলাই রোববারের মধ্যে আগের কর্মস্থল থেকে ছাড়পত্র সংগ্রহ করে নতুন বদলির কর্মস্থলে যোগদান করতে নির্দেশ দিয়েছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় হতে জানান বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. এএম মজিবুল হক।

 

এ বিষয়ে তিনি জানান, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে এক আদেশে চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন সরকারি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের দায়িত্বরত ২৮ চিকিৎসককে বিভিন্ন উপজেলার হাসপাতালে বদলি করা হয়েছে। তাদের ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে ছাড়পত্র নিতে হবে এবং নতুন কর্মস্থলে চলে যেতে হবে।

 

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. কিশোয়ার নাসরিনকে বদলি করা হয়েছে কক্সবাজার জেলার মহেশখালীর কালারমারছড়া ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে,

চমেক হাসপাতালের সহকারী সার্জন ডা. অর্পনা দাশকে রাউজান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে,
চমেক হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. রখি বণিককে সাতকানিয়ার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে,
চট্টগ্রামের ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের সহকারী সার্জন ডা. শরমিলা বড়ুয়াকে কক্সবাজারের রামুর কচ্ছপিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে
ও সহকারী সার্জন ডা. মো. আনোয়ার হোসেনকে আনোয়ারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বদলি করা হয়েছে।

 

এ ছাড়া চমেক হাসপাতালের ইনডোর মেডিকেল অফিসার ডা. আনোয়ার সাঈদকে সীতাকুণ্ডের সৈয়দপুর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে,

চমেকের সহকারী সার্জন ডা. পলাশ নাগকে বাঁশখালীর ছনুয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে,

চমেক হাসপাতালের সহকারী সার্জন ডা. প্রসেনজিৎ ঘোষকে চন্দনাইশের বরকল ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে,

সহকারী সার্জন ডা. মুমতাহিনা মাহমুদাকে পটিয়ার শিকলবাহা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কেন্দ্রে,

মেডিকেল অফিসার ডা. মুহাম্মদ তাহেরুল ইসলামকে মিরসরাই কমর আলী ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে,

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের সহকারী সার্জন ডা.শুভ দাশকে বাঁশখালীর সরল ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে,

চমেক হাসপাতালের সহকারী সার্জন ডা. লাইলী ইয়াসমীন আক্তারকে দোহাজারী ৩১ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে,

ফৌজদারহাট আইএইচটির সহকারী সার্জন ডা. শামীমা আক্তারকে মিরসরাই সাহেরখারী ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে,

চমেক হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. আবিরুল ইসলামকে বড়হাতিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে,

চট্টগ্রাম ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালেল সহকারী সার্জন ডা. পলাশ কান্তি করকে লোহাগাড়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে,

রৌফবাদ আরবান ডিসপেন্সারির সহকারী সার্জন ডা. রিফাত বিরতে রেজায়ীকে, হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে,

চমেক হাসপাতালের ইনডোর মেডিকেল অফিসার ডা. তাহিরা বেনজীরকে লোহাগাড়া চরম্বা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে

ও চমেকের মেডিকেল অফিসার শারাবানা তাহুরাকে ফেনীর শর্শদী উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে বদলি করা হয়েছে।

পটিয়াতে সড়ক দূর্ঘটনায় ৩ জন নিহত

সিটিজি বাংলাঃ

পটিয়ার নিমতলা মাজার এলাকায় দু’টি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের তিনজন নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছেন অন্তত ১৬ বাসযাত্রী।

শুক্রবার (১৫ জুন) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- কক্সবাজারের চিরিঙ্গা হিন্দুপাড়ার প্রবীণ শিক্ষক হৃদয় রঞ্জন দাশ (৭০), তার স্ত্রী বাসন্তি দাশ (৫৫) এবং জামাতা শিবাকর দাশ (৪০)। এদের মধ্যে হৃদয় রঞ্জন দাশ এবং বাসন্তি দাশ ঘটনাস্থলে প্রাণ হারালেও শিবাকর দাশকে আহত অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

হাইওয়ে পুলিশের পটিয়া ফাঁড়ির ইনচার্জ মিজানুর রহমান বলেন, দ্রুতগামী দু’টি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুই বাসযাত্রী নিহত এবং ১৬ বাসযাত্রী আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) আলাউদ্দীন তালুকদার বলেন, পটিয়াতে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ১৬ বাসযাত্রীকে চমেক হাসপাতালে আনা হয়। এদের মধ্যে একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেছেন। বাকীদের চিকিৎসা সেবা চলছে।

পটিয়ার নিমতলী মাজার এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় নারীসহ নিহত ২

সিটিজি বাংলা, পটিয়া প্রতিনিধি:

 

 

চট্টগ্রাম পটিয়ার নিমতলী মাজার এলাকায় দুটো বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ বাস যাত্রী নিহত হওয়ার ঘটনার খবর পাওয়া গেছে।

এতে দুই বাসে আহত হয়েছেন অন্তত ১৫/১৬ বাসযাত্রী।

১৫ জুন শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে উল্লেখিত এলাকায়।

তবে তাৎক্ষণিকভাবে কারো নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

পটিয়া হাইওয়ে পুলিশের ক্রসিং ফাঁঁড়ির ইনচার্জ এসআই মিজানুর রহমান দুর্ঘটনা ও এক নারীসহ ২ জন যাত্রীর মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, যাত্রীবাহি দুটি মিনিবাস বেলা পৌনে ১১টার দিকে শাহগদী মার্কেট (নীমতল) এলাকায় মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে এক নারীসহ ২ জনের মৃত্যু ঘটে। আহত হয়েছে উভয় বাসের ১৫/১৬জন যাত্রী। স্থানীয়দের সহায়তায় তাদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

মিনি বাস দুটিকে উদ্ধার করে পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে গেছে বলে জানান তিনি।

সাকিবকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

নিজস্ব প্রতিবেদক : ৬ মে ফলাফল প্রকাশের সম্ভ্যাব্য তারিখ। এস.এস.সি পাশ করে কলেজে ভর্তি হয়ে শিক্ষা জীবনের নতুন গন্ডিতে পা রাখবেন এমনটা প্রত্যাশা স্কুল ছাত্র সাকিবের। কিন্তু বাঁধা হয়ে জীবনের স্বপ্ন যাত্রা শুধু নয় বেঁচে থাকাকেও সংশয়ে ফেলে দিয়েছে শারীরিক ব্যাধি।দিনমজুর অসহায় বাবার চেয়ে থাকা ছাড়া যেন আর করার কিছুই নেই। নিজের চোখের সামনেই হাস্যজ্জ্বোল ছেলেটির জীবন প্রদীপ নিভে যাবে তা কল্পনা করেই মা-বাবা দুজনে তাদের নাওয়া-খাওয়া ছেড়ে অবিরত কেঁদে যাচ্ছেন আর সহায়তা চেয়েছেন বিত্তবানদের। মাত্র ৩/৪ লাখ টাকা হলেই তাদের সন্তানের জীবন বেঁচে যায় এ আশায় ধর্ণাও দিয়েছেন অনেকের কাছে।

চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া উপজেলার পশ্চিম হাইদ গাঁও গ্রামের ঝিয়ার পাড়া এলাকার বাসিন্দা দিনমজুর কামালের বড় ছেলে ইব্রাহিম উদ্দিন সাকিব।বাবা কামাল ও মা ফেরদৌস আকতারের ঘরে রয়েছে আরো ১ ছেলে ও ১ মেয়ে। ৫জনের সংসার খরচ চালাতেই যেখানে দিনমজুর বাবার হিমশিম খেতে হয় সেখানে বড় ছেলের চিকিৎসার জন্য ৩/৪ লাখ টাকা যোগাড় করা তার পক্ষে একেবারেই অসম্ভব। তাই ছেলের জীবন প্রদীপ নিভে যাওয়ার দৃশ্য দেখা ছাড়া যেন আর করার কিছুই নেই এ মাতা-পিতার।

ইব্রাহিম উদ্দিন সাকিব। বয়স ১৬। চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে হাইদ গাঁও উচ্চ বিদ্যালয় থেকে।সুস্থ স্বাভাবিক ছেলেটির তেমন কোন শারীরিক সমস্যা পরিলক্ষিত হয়নি কোনদিন। কিন্তু এসএসসি পরীক্ষার আগে হঠাৎ ১০ জানুয়ারীর দিকে সে অসুস্থবোধ করে। স্থানীয় অনেক ডাক্তার দেখানোর পরও সুস্থ না হওয়ায় মা-বাবা তাকে নিয়ে আসেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরীক্ষা নিরীক্ষার পর ডাক্তাররা সাকিবের ”হার্টের সমস্যা” চিহ্নিত করেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সাকিবকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে অথবা ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। ডাক্তাররা এও বলেছেন, দেশের বাইরে হলে টাকা বেশী প্রয়োজন কিন্তু ঢাকায় হলে ৩/৪ লাখ টাকার মধ্যে সাকিবের অপারেশন সম্ভব হবে।সাকিবের মা-বাবার সামর্থ্য নেই এ টাকা যোগাড় করে ছেলের চিকিৎসা করানোর।এ অবস্থায় তারা সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতা চেয়েছেন।

শারীরিক অসুস্থতা নিয়েই সাকিব এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে এ বছর। চোখে মুখে স্বপ্নবাজ এ কিশোর থেমে যেতে রাজী নয়। জীবনে বহুদুর পথ পাড়ি দেয়ার প্রত্যয়ী দূরন্ত এ কিশোরের মনোবল ও সাহস তাকে পরীক্ষার হলে টেনে নিয়ে গেছে শরীর না চলা অবস্থায়ও। মাত্র ৩/৪ লাখ টাকার অভাবে একটি কিশোরের জীবন এখানেই থেমে যাবে এমনটা কোন মানবিক মানুষ মেনে নিতে পারেন না। সবার সহযোগিতায় সাকিব বেঁচে যাবে এমনটাই প্রত্যাশা সকলের। সমাজের বিত্তবানদের নজরে না আসলেও সাকিবের বন্ধুরা তাঁকে বাঁচাতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাচ্ছেন সাহায্যের আশায়। বিভিন্ন জনবহুল এলাকায় তারা বক্স হাতে দাঁড়িয়ে বন্ধুর জীবন ভিক্ষা করছেন কিন্তু তাদের এ প্রয়াস কতটুকু সফল হবে সেটিই প্রশ্ন সাপেক্ষ। কেননা, বক্সে যে টাকা আসছে তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই নগন্য। সাকিবের বন্ধুরা তার সাহায্যের জন্য বড়দের এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন।

দিনমজুর বাবা-মা’র কোন ব্যাংক একাউন্টও নেই। কেউ সাহায্য পাঠাতে চাইলে বিকাশের ০১৮১৫-৫৭১৪৮৯(পারসোনাল) নাম্বারে পাঠাতে পারেন।

প্রত্যন্ত গ্রামের অশিক্ষিত দিনমজুর বাবা-মা’র মিডিয়াতেও তেমন কোন পরিচয় নেই। তাই ফলাও করে প্রকাশিত হয়নি এ জীবন যুদ্ধের মানবিক কথন। সেরকম প্রচার হলে হয়তো এতদিনে সাকিবের চিকিৎসার একটা ব্যবস্থা হয়েই যেতো বলে বিশ্বাস তার মা-বাবার ।

সিটিজি সংবাদকে সাকিবের বাবা বলেন, আমার ছেলের জীবন বাঁচাতে বিত্তবানদের একটু সহযোগিতাই যথেষ্ট। আমার ছেলে বাঁচতে চায়। আমার হাসিখুশী ছেলেটাকে হারালে আমি কি নিয়ে বাঁচবো ? এ করুণ আর্তনাদ ছুঁয়ে যাক মানবিক হৃদয়, তেমনটাই প্রত্যাশা আমাদের।

তবে এলাকার তার বন্ধুদের অভিমত, বড়দের সহযোগিতা পেলে এ টাকা সংগ্রহ করা তেমন কঠিন কোন ব্যাপার না। এখন পর্যন্ত আমরা ছোটরাই সাকিবকে বাঁচাতে চেষ্টা করে যাচ্ছি, যা বড়দের সহযোগিতা ছাড়া প্রায় অসম্ভব।