চট্টগ্রামের পাঠকপ্রিয় অনলাইন

হাটহাজারী

‘ওরা মিথ্যাবাদী’

সিটিজি বাংলাঃ

হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা আহমেদ শফি বলেছেন, ‘কওমী মাদ্রাসার সনদের স্বীকৃতি দেয়ার প্রতিদান হিসেবে সরকারকে ধন্যবাদ জানানো মানে কওমীদের বিক্রি করে দেয়া নয়। সরকারকে ধন্যবাদ দেয়ার অর্থ এ নয় যে, নীতি ও আদর্শ চ্যুত হয়ে গেছি। কওমী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে আমি সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়েছি। কওমী সনদ স্বীকৃতি বিল সংসদে পাশ হওয়ার পর একটি মহল আমার বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছে। তারা বলছে আমি আওয়ামী লীগ হয়ে গেছি। যারা এ অপ-প্রচার করছে তারা মিথ্যাবাদী। ’

শনিবার বিকেলে চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে একটি ধর্মীয় সংগঠন আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে লিখিত বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। আল্লামা শফি। তার হয়ে লিখিত বক্তব্যটি পাঠ করেন হাটহাজারী মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা নুরু উদ্দিন।

বিভিন্ন সমালোচনার জবাবে আল্লামা শফি বলেন, আমি রাজনীতির সাথে জড়িত নই। প্রচলিত রাজনীতির সাথে আমার কোনো সংশ্লিষ্টতাও নেই। তাই আমার বক্তব্যের ভুল ব্যাখা দিয়ে জাতিকে বিভ্রান্ত করবেন না। হেফাজতে ইসলাম একটি ধর্মীয়ভিত্তিক অরাজনৈতিক সংগঠন। নির্বাচনে কাউকে সমর্থন দেয়নি। দেবোও না। তবে নির্বাচনে যাতে নাস্তিকরা জয় যুক্ত হতে না পারে সেদিকে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা দাবিতে আন্দোলন নিয়ে তিনি বলেন, কওমী মাদ্রাসার সনদের স্বীকৃতি ও হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা আন্দোলন এক নয়। ১৩ দফা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

কওমী স্বীকৃতি অর্জন করায় শুকরিয়া ও দোয়া মাহফিলে মোনাজাত পরিচালনা করেন সংবর্ধিত অতিথি হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের আমির আল্লামা আহমেদ শফি।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বন ও পরিবেশ মন্ত্রী বলেন, ‘রাজনৈতিক কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে সরকার কওমীদের স্বীকৃতি দেয়নি। মূলত কওমী সমাজের সার্বিক উন্নয়নের জন্য সরকার সনদের স্বীকৃতি দিয়েছে।

হালদায় অবৈধ বালি উত্তোলন, ২ ড্রেজার জব্দ

সিটিজি বাংলাঃ

হালদা নদী থেকে অবৈধভাবে বালি উত্তোলনের সময় ২ ড্রেজারকে জব্দ করেছে হাটহাজারী উপজেলা প্রশাসন। ১ অক্টোবর সোমবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউ.এন.ও) রুহুল আমিনের নেতৃত্বে অভিযানে ড্রেজার দু’টি জব্দ করা হয়।

ইউ.এন.ও রুহুল আমিন জানান, ঠিক হালদা নদীর মাঝখানে ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন করা অবস্থায় থামতে বললে ড্রেজার দুুটি পাশের খালে প্রবেশ করে। এসময় ডিঙি নৌকা দিয়ে ধাওয়া করে খালে গিয়ে তাদের আটকাতে এবং জব্দ করতে সক্ষম হয়েছি। দীর্ঘ তিন ঘন্টা ধরে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে মাইক্রো-সিএনজি সংঘর্ষ: নিহত ২

সিটিজি বাংলা, হাটহাজারী প্রতিনিধি:

প্রতীকী ছবি

 

চট্টগ্রাম জেলার হাটহাজারী উপজেলার চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি সড়কের বুড়ি পুকুর এলাকায় মাইক্রোবাস ও সিএনজি চালিত অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ জন নিহত হয়েছে।

১৩ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার দিনগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।
নিহতরা হলেন- নুরুল হুদা (৪৫) ও আবু তৈয়ব (১৫)।

 

এ বিষয়ে হাটহাজারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গীর জানান, চট্টগ্রামমুখী একটি মাইক্রোবাস ও বিপরীত দিক থেকে আসা একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশার মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় ঘটনাস্থলেই ২ জন মারা যায়। তারা সম্পর্কে দুলাভাই – শ্যালক। গাড়ি দু’টি আটক করা হয়েছে থানায় রাখা হয়েছে। নিহতদের মরদেহগুলো চমেক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

এদিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই আলাউদ্দিন তালুকদার জানান, হাটহাজারীতে দুর্ঘটনায় নিহতদের লাশ দুটি থানা পুলিশ এখানে পাঠিয়েছেন। মরদেহ দু’টি মর্গে রাখা হয়েছে ময়নাতদন্তের জন্য।

চট্টগ্রামে উত্তর জেলা বিএনপির উদ্যোগে প্রতীকী অনশন কর্মসূচি পালন

সিটিজি বাংলা, রাজনৈতিক ডেস্ক:

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির অনশন কর্মসূচি

কেন্দ্রীয় ঘোষণা অনুযায়ী বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও নিঃশর্ত মুক্তি এবং কারাগারে আদালত স্থাপনের প্রতিবাদে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগে প্রতিকী অনশন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

 

১২ সেপ্টেম্বর বুধবার সকালে উত্তর জেলা বিএনপি’র সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার বেলায়েত হোসেন এর সভাপতিত্বে নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নির্বাহী কমিটির অন্যতম সদস্য উদয় কুসুম বড়ুয়া। বিএনপি নেতা ফিরোজ আহমেদ এর পরিচালনায় এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফটিকছড়ি উপজেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক সরওয়ার আলমগীর, মাঈন উদ্দিন মাহমুদ, আজমত আলী বাহাদুর, নিজামুল হক চৌধুরী তপন, শফিউল জামান, আবু জাফর চৌধুরী,ইলিয়াছ চৌধুরী, আলহাজ্ব মো: রফিক, এম এ হালিম, আবু বকর ছিদ্দিকী সোহেল, মহিউদ্দিন মাসুদ, মো: আবছার উদ্দিন, মো: এহসান।

 

অনশন চলাকালে নেতারা বলেন-আওয়ামী লীগ একদিকে নির্বাচনের কথা বলছে, অন্যদিকে বিরোধী দলের প্রধান নেতা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অসুস্থ অবস্থায় কারাগারে বন্ধী রেখে তড়িগড়ি করে একটি রায় দিয়ে নির্বাচনের অযোগ্য ঘোষণা করতে চায় এবং প্রত্যেকদিন থানায় থানায় গায়েবী মামলা দায়ের করে নির্যাতনের ষ্টীম রুলার চালিয়ে যাচ্ছে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে সরকার আরেকটি ৫ জানুয়ারির মত নির্বাচন করে ক্ষমতায় আকড়ে থাকতে চাই। আওয়ামী লীগের এই স্বপ্নকে বাংলাদেশে জনগণ কোনদিন বাস্তবায়ন হতে দেবে না।

এতে আরো উপস্থিত ছিলেন যুবদল সহ সভাপতি ইউছুপ চৌধুরী, সাবের সুলতান কাজল, ইকবাল চৌধুরী, হাজী সাদেক, এম শাহজাহন সাহিল, জানে আলম, কামরুল ইসলাম, সাহাব উদ্দিন, শামীম, সালাউদ্দিন, আনিসুজ্জামান সোহেল, মো: মুছা, মো: ইউনুস, মো: আলমগীর, আইয়ুব মেম্বার, মো: আলাউদ্দিন, স্বেচ্ছাসেবক দল নুরুল ইসলাম বাবুল মো: ইউছুপ তালুকদার, মো: একরাম মিয়া, মো: রহিম উদ্দিন রাজু, মো: আবুল কাশেম মুন্না, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, মুছা মেম্বার, বেলাল হাসান, নূর মোহাম্মদ, কুতুব উদ্দিন, আবদুল সালাম, মো: ইব্রাহিম, নাছির উদ্দিন, মো: এয়ার খান, মো: জাসু, মো: সাহাব উদ্দিন, ছাত্রদল নেতা মিয়ান রায়হানুল রাহী, একরামুল আজিম, শাহাদাত মির্জা, শফিউল আজম, শওকত, রায়হান, নিজাম উদ্দিন চৌধুরী, এম জি কিবরীয়া, জিয়াউদ্দিন, বিপুল খান, মো: একরাম, আজগর, ফরিদ উদ্দিন, রবিন, লিমন চৌধুরী বাপ্পা, তৌহিদ, রহিম, সাজ্জাদ, আরিফ, সাজ্জাদ, গাজী রাসেল, কাজী পিয়াল, রোকন, সিরাজুল ইসলাম, জাহেদুল আলম, জাহেদুল ইসলাম, মো: বেলায়েত, সাইমন প্রমুখ।

হাটহাজারীতে কলেজ ছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণ: ধর্ষক গ্রেফতার

সিটিজি বাংলা, হাটহাজারী প্রতিনিধি:

ধর্ষনকারী মোঃ আরাফাত তালুকদার আকাশ

চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলায় এক কলেজ ছাত্রীকে (১৮) অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

১ সেপ্টেম্বর শনিবার হাটহাজারী মডেল থানায় ওই কলেজ ছাত্রীর পিতা বাদি হয়ে এ মামলা রুজু করেন।

এর আগে গত শুক্রবার বিকালে থানা পুলিশের সহযোগিতায় ধর্ষণ ও অপহরণের এ ঘটনায় অভিযুক্ত মো. আরাফাত তালুকদার আকাশকে (২২) আটক ও কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

আকাশ পার্শ্ববর্তী রাউজান উপজেলার গহিরা কোতোয়ালি ঘোনার লোকমান সওদাগর বাড়ির লোকমান সওদাগরের পুত্র।

 

অভিযোগের বিবরণ ও কলেজ ছাত্রীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, কলেজ ছাত্রীটির বাড়ি হাটহাজারী উপজেলায়। সে নগরীর একটি কলেজে অনার্সে অধ্যয়নরত আছে। তাদের মধ্যে আগে থেকে সম্পর্ক ছিল। কলেজ ছাত্রীটি হাটহাজারী থেকে গত ৪ আগস্ট কলেজে যাওয়ার সময় হাটহাজারী বাসস্টেশন এলাকায় আকাশ তাকে ফুসলিয়ে অপহরণ করে মেখল রোড়ের জনৈক আনোয়ারা বেগমের ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়। ঘরে ফিরে না আসায় ও মেয়ের কোন সন্ধান না পেয়ে তার পিতা ৫ আগস্ট হাটহাজারী মডেল থানায় একটি নিখোঁজ ডায়েরি রুজু করেন। কলেজ ছাত্রীটিকে ঘরে বন্দী করে আকাশ তার অজ্ঞাতনাম ২/৩ জন সহযোগীর সহযোগিতায় একাধিকবার ধর্ষণ করে। গত শুক্রবার মেয়েটি তার মাকে ফোনে বিষয়টি জানালে তার মা বিষয়টি থানা পুলিশকে অবহিত করে। পরে থানা পুলিশের সহযোগিতায় মেখল রোড়ের আনোয়ারা ভাড়া বাসা থেকে মেয়েটিকে উদ্ধার ও আকাশকে গ্রেফতার করা হয়।

 

হাটহাজারী মডেল থানা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শামিম শেখ জানান, মেয়েটি ডাক্তারি পরিক্ষার জন্য মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। তাকে ২২ ধারায় বক্তব্য উপস্থাপনের জন্য আদালতে উপস্থাপন করা হয়েছে। অভিযুক্ত আকাশকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। তার সহযোগীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

ত্রিপুরা পল্লীতে হাম রোগে আক্রান্ত শিশুদের পাশে জেলা প্রশাসন

সিটিজি বাংলা, নগর প্রতিবেদক:

 

ত্রিপুরা পল্লীতে হাম রোগে আক্রান্ত শিশুদের পাশে জেলা প্রশাসন

চট্টগ্রাম হাটহাজারীতে অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে ৪ শিশুর মৃত্যুর ঘটনার পর হাটহাজারীর ফরহাদাবাদের ত্রিপুরা পাড়ার আরও ২৫ জন শিশু হাম রোগে আক্রান্ত হয়ে হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এসব শিশুদের জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পরিধানের কাপড় প্রদান করা হয়েছে।

২৯ আগস্ট বুধবার সকালে হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন ২৫ শিশুদের হাতে এসব কাপড় তুলে দেন চট্টগ্রামের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমান।

 

এ সময় তিনি জানান, ‘সোনাই ত্রিপুরার চিকিৎসা, পুষ্টিহীনতা, পানি সংকট নিরসনে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ হাতে নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে ওই এলাকার ৫২ পরিবারের মাঝে ২০ কেজি করে চাল, নগদ টাকা, মশারি দেওয়া হয়েছে। পানি সংকট নিরেসনে ৩টি গভীর নলকূপ এবং ২৬টি টয়লেট বসানো হচ্ছে।’

 

এছাড়াও সোনাই ত্রিপুরার উন্নয়নে নানা প্রকল্প গ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রী দফতরের চিঠি পাঠানোরও পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

 

এসময় হাম রোগে আক্রান্ত শিশুদের খোঁজ খবর নেন এবং প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেন তিনি।

 

শিশুদের কাপড় বিতরণকালে হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আক্তার উননেছা শিউলী, উপজেলা স্বাস্থ্য, পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা ইমতিয়াজ হোসাইন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নিয়াজ মোর্শেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে সোমবার স্বাস্থ্য অধিদফতর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কর্মকর্তারাও সেখানে গিয়ে শিশুদের খোঁজ-খবর নেন।

 

২১ আগস্ট থেকে ২৬ আগস্ট পর্যন্ত হাটহাজারীর ফরহাদাবাদের দক্ষিণ উদালিয়া এলাকার সোনাই ত্রিপুরা পাড়ার অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে ৪ শিশুর মৃত্যু হয়। পরবর্তীতে একই রোগে আক্রান্ত হয়ে আরও ২৫ শিশুকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। পরবর্তীতে জেলা সিভিল সার্জনের তত্ত্বাবধানে রোববার (২৬ আগস্ট) আক্রান্ত ৬ শিশু থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানোর পর সোমবার (২৭ আগস্ট) দুপুরে প্রতিবেদন দেয় স্বাস্থ্য অধিদফতর। সেখানে ৪ জনের দেহে প্রমাণ মেলে হাম ভাইরাসের।

হাম ভাইরাস জনিত কারণে এই জ্বর: ত্রিপুরা পল্লী পরিদর্শন শেষে স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা

সিটিজি বাংলা, হাটহাজারী প্রতিনিধি:

 

ফাইল ছবি

চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে ৪ শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় হাটহাজারীর ফরহাদাবাদ এলাকার সোনাই ত্রিপুরা পাড়া পরিদর্শনে গেছেন স্বাস্থ্য অধিদফতর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কর্মকর্তারা।

২৭ অাগস্ট সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তারা এ এলাকায় হাসপাতাল পরিদর্শনে যান। কর্মকর্তারা অজ্ঞাত রোগে অাক্রান্ত পরিবারের সঙ্গে কথা বলছেন এবং কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখেছেন বলে জানা গেছে সংশ্লিষ্ট সূত্রে।

রাজধানীর স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রতিনিধি ডা. রেজাউর রহমান খান, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি হিসেবে ডা. মোস্তাফা ও স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা অাবু সৈয়দ মো. ইমতিয়াজ হোসাইনসহ প্রমুখ ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন।

এবিষয়ে ইমতিয়াজ হোসাইন জানান, অাক্রান্ত এিপুরা পল্লীতে পরিদর্শন শেষে ওই সমস্ত পরিবারের সঙ্গে কথা বলছেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তগণ। পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতাল পরিদর্শন শেষে এটি শুধুমাত্র জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব পড়ে এই সমস্ত সমস্যার দেখা দিয়েছে, যা হাম ভাইরাস জনিত কারণে এই জ্বর বলে উল্লেখ করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।

তিনি আরো জানান, আক্রান্ত ৬ জন শিশু থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানোর পর সোমবার দুপুরে প্রতিবেদন দেয় স্বাস্থ্য অধিদফতর। সেখানে ৪ জনের দেহে প্রমাণ মেলে এ হাম ভাইরাসের নমুনা পাওয়া যায়।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন আজিজুর রহমান সিদ্দিকী বলেন, হাটহাজারীর সোনাই-ত্রিপুরা পাড়ায় ৪ শিশু অজ্ঞাত রোগে নয়, ভাইরাসজনিত হাম রোগে মারা গেছে।

তিনি আরো বলেন, রোববার রাতে জরুরি ভিত্তিতে আক্রান্ত ৬ শিশু থেকে নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয় পরীক্ষার জন্য। পরে সোমবার দুপুরে প্রতিবেদন পাই আমরা। সেখানে ৬ শিশুর মধ্যে ৪ জনের দেহে মিলেছে হাম ভাইরাস।

প্রসঙ্গত গত ২১ অাগস্ট (মঙ্গলবার) থেকে ২৬ অাগস্ট ( রোববার) পর্যন্ত ওই ত্রিপুরা পাড়ায় অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে ৪ শিশুর মৃত্যু হয়েছে এবং একই রোগে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২৮ শিশু ভর্তি রয়েছে বলে তথ্যে জানা গেছে।

হাটহাজারী ত্রিপুরা পল্লীতে অজ্ঞাত চার শিশুর মৃত্যু, হাসপাতালে ভর্তি ২২

সিটিজি বাংলাঃ

হাটহাজারীর ত্রিপুরা পল্লীতে অজানা রোগে আক্রান্ত হয়ে অন্ন বালা ত্রিপুরা (৭) নামের এক শিশুসহ মোট চার শিশুর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। রবিবার সকালে উপজেলার ফরহাদাবাদ ইউনিয়নের দুর্গম ত্রিপুরাপল্লীতে এ ঘটনা ঘটে।
রোববার দুপুরে ওই পল্লির ২২ শিশুকে হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের বয়স ১ থেকে ১০ বছরের মধ্যে। এই শিশুদের তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা শিশুদের মধ্যে রয়েছে সোনালি চাকমা (৪), মেনসন চাকমা (৫), গোপাল চাকমা (২), সুনীল ত্রিপুরা (৫), স্বপ্না ত্রিপুরা (১), রিপন ত্রিপুরা (১), রতন ত্রিপুরা (৩), রত্না ত্রিপুরা (২), ইমারানী ত্রিপুরা (৮), বিজলি ত্রিপুরা (৭), কিরণমালা ত্রিপুরা (১০), বিজয় ত্রিপুরা (৬), সীমারানী ত্রিপুরা (৪), লক্ষ্মণ ত্রিপুরা (৩), শুভরানী ত্রিপুরা (১), গীতারানী ত্রিপুরা (৩), গুনাধর ত্রিপুরা (৬), সুধান্দ ত্রিপুরা (৪), রনি ত্রিপুরা (৭), শিমুল ত্রিপুরা (৫), রতন ত্রিপুরা (৫) ও সুমুন ত্রিপুরা (১০)।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, রবিবার সকালে অন্ন বালা ত্রিপুরা (৭), শুক্রবার সম রায় ত্রিপুরা (৩) এবং মঙ্গলবার একই দিনে অন্ন রায় ত্রিপুরা (৫) ও কিশা মনি ত্রিপুরা (৩) নামের দুই শিশুসহ মোট চার শিশুর মৃত্যু হয়। এভাবে একের পর এক শিশু মৃত্যুর ঘটনায় ত্রিপুরা এলাকার পরিবারগুলোর মধ্যে চরম আতংক দেখা দিয়েছে।
নয়ন বিকাশ ত্রিপুরা,বন কুমার ত্রিপুরাসহ বেশ কয়েকজন স্থানীয় লোকজন ক্ষোভের সঙ্গে  জানায়, এ দুর্গম পল্লীতে প্রায় ৫৫টি পরিবারের ৪’শ লোকের বসবাস হলেও এখানে কোন স্বাস্থ্য কর্মী আসেন না। অনেক আগে একজন স্বাস্থ্য কর্মী এসেছিলেন মাত্র একদিন, তবে আজ পর্যন্ত আর কোনো স্বাস্থ্যকর্মী এমনকি স্থানীয় ইউপি সদস্যও খবর নেয়নি।
তারা জানান, আরো অনেক শিশুই এ অজানা রোগে আক্রান্ত এখন। আক্রান্ত শিশুগুলোর গায়ে প্রথমে বিচি এবং পরে এক প্রকার ঘা এর মতো হয়ে সমস্ত শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। তারপর আক্রান্ত শিশুটা আস্তে আস্তে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।
হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবু সৈয়দ মোহাম্মদ ইমতিয়াজ হোসাইন বলেন, ভাইরাস রোগে গত ছয় দিনে চার ত্রিপুরা শিশু মারা গেছে। দুপুরে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে ত্রিপুরাপল্লির ২২ শিশুকে। তাদের রক্তের নমুনা নেওয়া হয়েছে। পরীক্ষা করে জানা যাবে তারা কোন রোগে আক্রান্ত।
চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন আজিজুর রহমান সিদ্দিকী রোববার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে বলেন, ‘আমি হাটহাজারীতে এসেছি। কাল সোমবার ঢাকা থেকে চিকিৎসক টিম এসে রক্তের নমুনা নিয়ে যাবে।’

হাটহাজারী ত্রিপুরা পল্লীতে অজ্ঞাত চার শিশুর মৃত্যু, হাসপাতালে ভর্তি ২২

সিটিজি বাংলাঃ

হাটহাজারীর ত্রিপুরা পল্লীতে অজানা রোগে আক্রান্ত হয়ে অন্ন বালা ত্রিপুরা (৭) নামের এক শিশুসহ মোট চার শিশুর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। রবিবার সকালে উপজেলার ফরহাদাবাদ ইউনিয়নের দুর্গম ত্রিপুরাপল্লীতে এ ঘটনা ঘটে।
রোববার দুপুরে ওই পল্লির ২২ শিশুকে হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের বয়স ১ থেকে ১০ বছরের মধ্যে। এই শিশুদের তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা শিশুদের মধ্যে রয়েছে সোনালি চাকমা (৪), মেনসন চাকমা (৫), গোপাল চাকমা (২), সুনীল ত্রিপুরা (৫), স্বপ্না ত্রিপুরা (১), রিপন ত্রিপুরা (১), রতন ত্রিপুরা (৩), রত্না ত্রিপুরা (২), ইমারানী ত্রিপুরা (৮), বিজলি ত্রিপুরা (৭), কিরণমালা ত্রিপুরা (১০), বিজয় ত্রিপুরা (৬), সীমারানী ত্রিপুরা (৪), লক্ষ্মণ ত্রিপুরা (৩), শুভরানী ত্রিপুরা (১), গীতারানী ত্রিপুরা (৩), গুনাধর ত্রিপুরা (৬), সুধান্দ ত্রিপুরা (৪), রনি ত্রিপুরা (৭), শিমুল ত্রিপুরা (৫), রতন ত্রিপুরা (৫) ও সুমুন ত্রিপুরা (১০)।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, রবিবার সকালে অন্ন বালা ত্রিপুরা (৭), শুক্রবার সম রায় ত্রিপুরা (৩) এবং মঙ্গলবার একই দিনে অন্ন রায় ত্রিপুরা (৫) ও কিশা মনি ত্রিপুরা (৩) নামের দুই শিশুসহ মোট চার শিশুর মৃত্যু হয়। এভাবে একের পর এক শিশু মৃত্যুর ঘটনায় ত্রিপুরা এলাকার পরিবারগুলোর মধ্যে চরম আতংক দেখা দিয়েছে।
নয়ন বিকাশ ত্রিপুরা,বন কুমার ত্রিপুরাসহ বেশ কয়েকজন স্থানীয় লোকজন ক্ষোভের সঙ্গে  জানায়, এ দুর্গম পল্লীতে প্রায় ৫৫টি পরিবারের ৪’শ লোকের বসবাস হলেও এখানে কোন স্বাস্থ্য কর্মী আসেন না। অনেক আগে একজন স্বাস্থ্য কর্মী এসেছিলেন মাত্র একদিন, তবে আজ পর্যন্ত আর কোনো স্বাস্থ্যকর্মী এমনকি স্থানীয় ইউপি সদস্যও খবর নেয়নি।
তারা জানান, আরো অনেক শিশুই এ অজানা রোগে আক্রান্ত এখন। আক্রান্ত শিশুগুলোর গায়ে প্রথমে বিচি এবং পরে এক প্রকার ঘা এর মতো হয়ে সমস্ত শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। তারপর আক্রান্ত শিশুটা আস্তে আস্তে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।
হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবু সৈয়দ মোহাম্মদ ইমতিয়াজ হোসাইন বলেন, ভাইরাস রোগে গত ছয় দিনে চার ত্রিপুরা শিশু মারা গেছে। দুপুরে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে ত্রিপুরাপল্লির ২২ শিশুকে। তাদের রক্তের নমুনা নেওয়া হয়েছে। পরীক্ষা করে জানা যাবে তারা কোন রোগে আক্রান্ত।
চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন আজিজুর রহমান সিদ্দিকী রোববার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে বলেন, ‘আমি হাটহাজারীতে এসেছি। কাল সোমবার ঢাকা থেকে চিকিৎসক টিম এসে রক্তের নমুনা নিয়ে যাবে।’

হাটহাজারীতে পুকুরে ডুবে উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রের মৃত্যু

সিটিজি বাংলা, হাটহাজারী প্রতিনিধি:

 

 

নিহত বাপ্পী বিশ্বাস

চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলাতে গোসল করতে গিয়ে পুকুরে ডুবে এক যুবকের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

 

২১ আগস্ট মঙ্গলবার দুপুরে হাটহাজারীর পশ্চিম শিকারপুর এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটেছে। নিহতের নাম বাপ্পী বিশ্বাস (২৩)।

তিনি ওই এলাকার সূর্য বিশ্বাসের ছেলে বলে জানা গেছে। নানার বাড়ীতে বেড়াতে গিয়ে গোসল করতে পুকুরের নেমে পানিতে তলিয়ে যায় বাপ্পি। সে উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন।

 

বাপ্পির স্বজনরা জানায়, বাপ্পির মৃগী রোগ ছিল। হয়তো পুকুরে নামার পর ওই রোগে সে আক্রান্ত হয়ে পানিতে ডুবে যায়।

 

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপ-পরিদর্শক মো. আলাউদ্দিন তালুকদার জানান, হাটহাজারীর পশ্চিম শিকারপুর এলাকায় পুকুরে গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে যায় বাপ্পী বিশ্বাস। পরে তাকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে অানা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বাপ্পীকে মৃত ঘোষণা করেন।