চট্টগ্রামের পাঠকপ্রিয় অনলাইন

রাজনীতি

‘খালেদা জিয়াকে প্যারোলে মুক্তির জন্য আলোচনার দরজা খোলা’

সিটিজি বাংলাঃ

খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য প্যারোলে মুক্তির জন্য বিএনপি নেতারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করতে পারেন। আলোচনার পথ খোলা আছে বলে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

৪ নভেম্বর রোববার সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সমসাময়িক ইস্যুতে প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন।

সেতুমন্ত্রী বলেন, এর আগে প্রায় ৩০ মামলায় বেগম জিয়া জামিন পেয়েছেন। আর যে মামলায় রায় হয়েছে সে মামলা আমরা করিনি, রায়ও আমরা দিইনি। তাই রায়ের বিষয়ে তারা আইনিভাবে আদালতে এগুতে পারে। এটা পুরোটাই আদালতের বিষয়।

এরশাদ সিএমএইচে

সিটিজি বাংলাঃ

হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল-সিএমএইচে গেছেন। যদিও দলের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানানো হয়নি।

রবিবার দুপুরে গুরুতর সাবেক রাষ্ট্রপতিকে সিএমএইচে নেয়া হয় বলে জাতীয় পার্টির একজন শীর্ষ নেতা নিশ্চিত করেছেন।
ওই নেতা বলেন, এরশাদ বেশ কিছুদিন ধরেই শারীরিকভাবে অসুস্থ। গত শনিবারের মহাসমাবেশে তিনি চেয়ারে বসে বক্তব্য রাখেন অসুস্থতার জন্যই।

জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং এরশাদের প্রেস উইংয়ের প্রধান সুনীল শুভ রায় বলেন, ‘গলফ খেলতে গিয়ে হাঁটুতে ব্যথা পেয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। ওনি এ কারণে কয়েকদিন ধরেই হাঁটতে পারছিলেন না। ডাক্তার বলেছেন, কমপ্লিট রেস্ট দরকার। যেহেতু বাসায় গেলে হাঁটাহাঁটি করা যায় না, তাই স্যারকে দুই দিন হাসপাতালেই রাখা হচ্ছে।’

৯০ ছুঁই ছুঁই এরশাদ ডায়াবেটিকসহ বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছেন। তার দুটো ভাল্বেই ছিদ্র রয়েছে। তিনি সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে রুটিন চেকআপ করতেন।

জানতে চাইলে এরশাদের উপপ্রেস সচিব খন্দকার দেলোয়ার জালালী বলেন, ‘গতকাল স্যার একটু অসুস্থ ছিলেন। সিএমএইচে চেকআপে গিয়েছিলেন। আরও চেকআপ প্রয়োজন বলে আজকে আবার গিয়েছেন। তবে তিনি সেখানে ভর্তি হননি।’

১৯৩০ সালে জন্ম নেয়া এরশাদ ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগেও সিএমএইচে ভর্তি হয়েছিলেন। তবে সে সময় তাকে নিয়ে যায় র‌্যাব। যদিও এরশাদের সে সময়ের অসুস্থতা নিয়ে নানা প্রশ্ন ছিল।

নির্বাচনের আগে আগে এরশাদ ভোটে যাবেন না ঘোষণা দিয়ে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে তার দলের নেতাদেরকে নির্দেশ দেন। এই নির্দেশের পর বেশ কয়েকজন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করলেও এরশাদ পত্নী রওশন এরশাদের নেতৃত্বে দলের একটি অংশ নির্বাচনে যায়। অনিচ্ছা সত্ত্বেও রংপুর সদর আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। ভোটের দিনেও সিএমএইচে ছিলেন এরশাদ।

গত শনিবারের মহাসমাবেশে এরশাদ ‘গুরুত্বপূর্ণ বার্তা’ দেন। বলেন, আগামী নির্বাচন অনিশ্চিত। তবে তিনশ আসনে ভোটের জন্য তার দল প্রস্তুত বলেও জানান তিনি।

হালিশহর থানা ছাত্রলীগের শহীদ শেখ রাসেলের জন্মদিন পালন

সিটিজি বাংলা, নগর প্রতিবেদক:

হালিশহর থানা ছাত্রলীগের শহীদ শেখ রাসেলের ৫৪তম জন্মদিন পালন

চট্টগ্রাম নগরীর হালিশহর থানা ছাত্রলীগের উদ্যোগে শহীদ শেখ রাসেলের জন্মদিন পালন করা হয়েছে।

১৮ অক্টোবর বৃহস্পতিবার জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেলের ৫৪ তম জন্মদিন উপলক্ষে সিটি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা মিজানুল হক সাজুর সভাপতিত্বে এ আয়োজন করা হয়।

 

হালিশহর থানা ছাত্রলীগ নেতা ইয়াজধানির পরিচালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ২৫নং রামপুর ওয়ার্ড কাউন্সিলর জনাব এস এম এরশাদ উল্লাহ।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেল আজ হয়তো বেঁচে থাকলে জননেত্রী দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেশের মানুষের পাশে থেকে কাজ করে যেতেন। শহীদ শেখ রাসেল আমাদের সকলের কাছে অত্যন্ত প্রিয় একজন শিশু সন্তান। ওই হায়নার বাহিনীর দল বঙ্গভবনে স্বপরিবারে শিশু সন্তান শহীদ শেখ রাসেলকেসহ হত্যা করে নিকৃষ্ট ঘৃণ্য এক ইতিহাস রচনা করে গেছে। যা যুগে যুগে মানুষ জাতীয় শোক হিসেবে পালন করে যাচ্ছে।’

এ সময় সেখানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্রাগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম শহিদ। এছাড়াও ২৮ নং ওয়ার্ড যুবলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক আলমগীর চৌধুরী আলোসহ হালিশহর থানা ও ওয়ার্ড ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

বি-মাহী চৌধুরী বহিস্কার, ঐক্যফ্রন্টে থাকার ঘোষণা বিকল্পধারার

সিটিজি বাংলাঃ

বিকল্পধারা বাংলাদেশের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. নুরুল আলম বেপারী নিজেকে দলটির প্রেসিডেন্ট হিসাবে ঘোষণা করেছেন। এর পাশাপশি অ্যাডভোকেট শাহ আহম্মেদ বাদলকে মহাসচিব হিসাবে ঘোষণা করেছেন।

দলের প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীসহ এমএ মান্নান ও মাহী বি. চৌধুরীকে অব্যাহতি দিয়ে তিনি এই নতুন কমিটির নাম ঘোষণা করেন।

আজ সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের বাইরে দলের পক্ষ থেকে এক সংবাদ সম্মেলনে অধ্যাপক নুরুল আলম বেপারী একথা জানান।

এসময় নবগঠিত কমিটির মহাসচিব অ্যাডভোকেট শাহ আহম্মেদ বাদলসহ এল কে সিদ্দিক, আজমেরী বেগম ছন্দা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে নতুন কমিটির গঠনের ব্যাপারে অধ্যাপক নুরুল আলম বেপারী জানান, বিকল্পধারার তিনজন বাদে সবাই তার সাথে আছেন। এবং শিগগিরই পূর্ণাঙ্গ কমিটির নাম ঘোষণা করা হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে নতুন কমিটির মহাসচিব বাদল বলেন, আজকে কিছু মানুষ রাতের অন্ধকারে সরকারের সঙ্গে আঁতাত করে মানুষকে বিপদে ঠেলে দিতে চায়।

তিনি বলেন, দেশে অবাধ নির্বাচন জনগণের দাবি। এই দাবিতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠিত হয়েছে। আমরা বিকল্পধারার সকল নেতাকর্মী সিদ্ধান্ত নিয়েছি ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্বে আন্দোলনে অংশ নেব।

তিনি দাবি করেন, আজকের সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত সকলে বিকল্পধারার মূলস্রোত। এর বাইরে অবস্থানকারীরা জনআকাক্সক্ষার বিরোধী শক্তি।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, সাংবাদিকদের মাধ্যমে এই ঘোষণা দেশজাতিকে জানানোর জন্য আমরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছিলাম। কিন্তু দুঃখজনক হলো আমাদের বৈধ অনুমতি থাকলেও হঠাৎ করে কারো কালো ইশারায় আমাদের সংবাদ সম্মেলন বাতিল করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের মূল লক্ষ্য হল দেশে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা হোক। জাতির সংকট মোকাবেলা করার জন্য এ অস্থায়ী কমিটির ঘোষণা করা হলো। যতদ্রুত সম্ভব দলীয় গঠনতন্ত্র মোতাবেক পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হবে। অন্তর্বর্তীকালীন এ সময়ে ঘোষিত অস্থায়ী কমিটি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের যে কোনো কর্মসূচিতে বিকল্পধারার একমাত্র বৈধ নেতৃত্ব বলে বিবেচিত হবে।

নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে সংসদ নির্বাচনের তফসিল : ইসি

সিটিজি বাংলাঃ

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার বরাত দিয়ে তিনি বলেন, ‘ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার জানিয়েছেন, নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে।’

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাত সদস্যের একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক শেষে ইসি সচিব এ কথা বলেন।

সচিব বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার জানিয়েছেন নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে।

সচিব বলেন, প্রতিনিধিদল ফ্রি, ফেয়ার, ইনক্লুসিভ, পার্টিসিপেট নির্বাচন চেয়েছেন। কমিশন থেকে বলা হয়েছে, আইনের মধ্যে থেকে সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তারা আরো কি জানতে চেয়েছেন-সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, ইভিএম, পর্যবেক্ষক, জনবল, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, প্রবাসীদের ভোট দেওয়ার প্রক্রিয়া, ভোটার তালিকা সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধিদলের মুখপাত্র বলেন, বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন অনেক ভালো কাজ করছে। তাদের ওপর আমাদের আস্থা রয়েছে।

এর আগে বেলা ১১টার দিকে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের ৭ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার কার্যালয়ে বৈঠক করে। বৈঠকে সাতটি দেশের রাষ্ট্রদূত ছাড়াও নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, মো. রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

দখলবাজ, চাঁদাবাজ নৌকার টিকিট পাবেন না : ওবায়দুল কাদের

সিটিজি বাংলাঃ

ফাইল ছবি

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মনোনয়ন যে কেউ চাইতে পারেন। তবে এটা নিয়ে কোনো অসুস্থ রাজনীতিতে লিপ্ত হওয়া যাবে না। কোনো দখলবাজ, চাঁদাবাজ আগামী নির্বাচনে নৌকার টিকিট পাবেন না। এখন যারা মনোনয়ন দৌড়-ঝাঁপে আছেন তাদের জনগণের সঙ্গে সম্পর্ক থাকতে হবে। কোনো প্রকার অসুস্থ রাজনীতিতে লিপ্ত হওয়া যাবে না। একজন অন্যজনের ওপর কাঁদা ছুড়বেন না। জনপ্রিয়তা যার বেশি আমরা তাকেই মনোনয়ন দেব।

শনিবার রাজধানীর চকবাজার থানা আওয়ামী লীগ আয়োজিত প্রচারপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে এ মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, রাজনীতির মানবিক মূল্যবোধ নষ্ট করেছে বিএনপি। এর আগে মানবিক মূল্যবোধ ছিলো, খালেদা জিয়া কোনো বিপদে পড়লে চলে যেতেন শেখ হাসিনা। কুমিল্লার হাসপাতালে ভর্তি হলেন খালেদা জিয়া, শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগ কর্মীরা দেখতে গিয়েছেন। খালেদার সন্তান মারা যাওয়ায় দেখতে গেলেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কি আচরণ করেছেন দেশবাসী জানে। তারাই রাজনীতির মানবিক মূল্যবোধ নষ্ট করেছে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, সামনে নির্বাচন, দেশ রক্ষার নির্বাচন। মনে রাখতে হবে মুক্তিযুদ্ধকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। দেশের চলমান উন্নয়ন ধরে রাখতে হলে শেখ হাসিনাকে আবারও ক্ষমতায় আনতে হবে। দেশ রক্ষায়, দেশের স্বাধীনতা রক্ষায় শেখ হাসিনার বিকল্প নেই।

ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসনাত, সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদসহ দলটির সহযোগী নেতারা।

ফের জামিন নামঞ্জুর জামায়াতের নেতা শাহজাহান চৌধুরীর

সিটিজি বাংলা, রাজনৈতিক ডেস্ক:

 

জামায়াত নেতা শাহজাহান চৌধুরী

চট্টগ্রাম আদালতে জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক সংসদ সদস্য শাহজাহান চৌধুরীসহ সাত নেতাকর্মীকে হাজির করে তার আইনজীবীরা জামিনের আবেদন চাইলে আদালত তা ফের নামঞ্জুর করেছেন।

১২ সেপ্টেম্বর বুধবার সকালে মহানগর দায়রা জজ মো. আকবর হোসেন মৃধার আদালতে শাহজাহান চৌধুরীসহ সাতজনের জামিন না মঞ্জুর করেন। এর আগে ১০ সেপ্টেম্বর নগরীর চকবাজার থানার অন্য দুইটি মামলায় আদালতে হাজির করে শাহজাহান চৌধুরীর জামিনের আবেদন করলে আদালত তা না মঞ্জুর করেন।

 

এ বিষয়ে মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর ফখরুদ্দীন চৌধুরী বলেন, নগরীর খুলশী থানায় দায়ের করা মামলায় সাতজনকে আদালতে হাজির করে জামিন চান আসামি পক্ষের আইনজীবী। কিন্তু আদালত শুনানি শেষে জামিনের আবেদন না মঞ্জুর করেন।

 

উল্লেখ্য, গত ৩ আগস্ট খুলশী থানার মুরগির ফার্ম খুলশী আবাসিক এলাকায় সাবেক কাউন্সিলর মাহফুজুল আলমের বাসা থেকে ‘গোপন বৈঠক’ করার সময় জামায়াত নেতা ও সাবেক সংসদ সদস্য শাহজাহান চৌধুরীসহ আটজনকে গ্রেফতার করে নগর গোয়েন্দা পুলিশের উত্তর ও বন্দর জোন। পরে নাশকতার পরিকল্পনার অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে খুলশী থানায় মামলা দায়ের করেন নগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক মো. রেজাউল করিম চৌধুরী। এ মামলায় ৬ আগস্ট শাহজাহান চৌধুরীকে দুই দিনের রিমান্ডেও নেয় পুলিশ।

 

ওই মামলার আসামিরা হলেন- সাবেক সংসদ সদস্য শাহজাহান চৌধুরী (৬৪), মো. আবু তাহের ভুইয়া (৬৯), মঞ্জুর আলম (৩৩), মো. মাহাবুব আলম প্রকাশ মিঠু (৩২), মিনহাজুল আরেফিন আফতাহী (২৪), মো. আবুল বাশার (২৬), এইচ এম সাইফুদ্দিন (৩৬) ও মো. রাসেল (১৯)।

চট্টগ্রামে উত্তর জেলা বিএনপির উদ্যোগে প্রতীকী অনশন কর্মসূচি পালন

সিটিজি বাংলা, রাজনৈতিক ডেস্ক:

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির অনশন কর্মসূচি

কেন্দ্রীয় ঘোষণা অনুযায়ী বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও নিঃশর্ত মুক্তি এবং কারাগারে আদালত স্থাপনের প্রতিবাদে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগে প্রতিকী অনশন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

 

১২ সেপ্টেম্বর বুধবার সকালে উত্তর জেলা বিএনপি’র সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার বেলায়েত হোসেন এর সভাপতিত্বে নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নির্বাহী কমিটির অন্যতম সদস্য উদয় কুসুম বড়ুয়া। বিএনপি নেতা ফিরোজ আহমেদ এর পরিচালনায় এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফটিকছড়ি উপজেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক সরওয়ার আলমগীর, মাঈন উদ্দিন মাহমুদ, আজমত আলী বাহাদুর, নিজামুল হক চৌধুরী তপন, শফিউল জামান, আবু জাফর চৌধুরী,ইলিয়াছ চৌধুরী, আলহাজ্ব মো: রফিক, এম এ হালিম, আবু বকর ছিদ্দিকী সোহেল, মহিউদ্দিন মাসুদ, মো: আবছার উদ্দিন, মো: এহসান।

 

অনশন চলাকালে নেতারা বলেন-আওয়ামী লীগ একদিকে নির্বাচনের কথা বলছে, অন্যদিকে বিরোধী দলের প্রধান নেতা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অসুস্থ অবস্থায় কারাগারে বন্ধী রেখে তড়িগড়ি করে একটি রায় দিয়ে নির্বাচনের অযোগ্য ঘোষণা করতে চায় এবং প্রত্যেকদিন থানায় থানায় গায়েবী মামলা দায়ের করে নির্যাতনের ষ্টীম রুলার চালিয়ে যাচ্ছে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে সরকার আরেকটি ৫ জানুয়ারির মত নির্বাচন করে ক্ষমতায় আকড়ে থাকতে চাই। আওয়ামী লীগের এই স্বপ্নকে বাংলাদেশে জনগণ কোনদিন বাস্তবায়ন হতে দেবে না।

এতে আরো উপস্থিত ছিলেন যুবদল সহ সভাপতি ইউছুপ চৌধুরী, সাবের সুলতান কাজল, ইকবাল চৌধুরী, হাজী সাদেক, এম শাহজাহন সাহিল, জানে আলম, কামরুল ইসলাম, সাহাব উদ্দিন, শামীম, সালাউদ্দিন, আনিসুজ্জামান সোহেল, মো: মুছা, মো: ইউনুস, মো: আলমগীর, আইয়ুব মেম্বার, মো: আলাউদ্দিন, স্বেচ্ছাসেবক দল নুরুল ইসলাম বাবুল মো: ইউছুপ তালুকদার, মো: একরাম মিয়া, মো: রহিম উদ্দিন রাজু, মো: আবুল কাশেম মুন্না, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, মুছা মেম্বার, বেলাল হাসান, নূর মোহাম্মদ, কুতুব উদ্দিন, আবদুল সালাম, মো: ইব্রাহিম, নাছির উদ্দিন, মো: এয়ার খান, মো: জাসু, মো: সাহাব উদ্দিন, ছাত্রদল নেতা মিয়ান রায়হানুল রাহী, একরামুল আজিম, শাহাদাত মির্জা, শফিউল আজম, শওকত, রায়হান, নিজাম উদ্দিন চৌধুরী, এম জি কিবরীয়া, জিয়াউদ্দিন, বিপুল খান, মো: একরাম, আজগর, ফরিদ উদ্দিন, রবিন, লিমন চৌধুরী বাপ্পা, তৌহিদ, রহিম, সাজ্জাদ, আরিফ, সাজ্জাদ, গাজী রাসেল, কাজী পিয়াল, রোকন, সিরাজুল ইসলাম, জাহেদুল আলম, জাহেদুল ইসলাম, মো: বেলায়েত, সাইমন প্রমুখ।

চট্টগ্রামে খালেদা জিয়াকে মুক্তিসহ বিভিন্ন দাবিতে অনশন কর্মসূচি পালন

সিটিজি বাংলা, রাজনৈতিক ডেস্ক:

প্রতিকী অনশনে বক্তব্য রাখেন ড. শাহাদাত হোসেন

কেন্দ্রীয় ঘোষণা অনুযায়ী বিএনপির চেয়ারপর্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সু-চিকিৎসার দাবীতে এবং কারগারে আদালত স্থাপন করে বিচারকাজ পরিচালনার প্রতিবাদে বন্দর নগরী চট্টগ্রামে প্রতিকী অনশন পালন করছে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি দল।

 

১২ সেপ্টেম্বর বুধবার সকাল ১০টায় কাজীর দেউড়ি এলাকায় দলীয় কার্যালয় নাসিমন ভবনের সামনে আয়োজিত কর্মসূচীতে বৃষ্টি উপক্ষে করে অংশ গ্রহণ করে বিপুল সংখ্যক বিএনপির নেতাকর্মীরা।

পূর্ব ঘোষিত কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে অনুষ্ঠিত এই অনশন কর্মসূচী সকাল ১০টায় শুরু হয়ে বেলা ১২টায় শেষ হয়। এ অনশন কর্মসূচিতে বিভিন্ন পেশাজীবি এবং রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ দুর্যোগপূর্ণ আবহওয়া উপেক্ষা করে যোগ দেন। শেষে অনশন কর্মসূচি জুস খাইয়ে ভঙ্গ করান বার কাউন্সিলের ল’ এডিট কমিটির চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট দেলোয়ার হোসেন।

 

এসময় অনশন কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ও বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ডাঃ শাহাদাত হোসেন।

তিনি বলেন, কারাগারে বেগম খালেদার জিয়া বাম হাত ও পা প্রায় অবশ হয়ে গেছে। বর্তমানে তিনি খুবই অসুস্থ। সরকারী ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করানোর সুপারিশ করলেও সরকার তা অগ্রাহ্য করছে। একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তাকে সুচিকিৎসা না দিয়ে কারাগারে মেরে ফেলার ষড়যন্ত্র করছে সরকার। জেল কোড অনুযায়ী বেগম খালেদা জিয়া সুচিকিৎসা ও ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত।

তিনি আরও বলেন, সরকারের ঘনিষ্ট্য ব্যক্তিরা অবৈধভাবে লুটপাট করে আজকে বিশ্বের শীর্ষ ধনীর তালিকায় স্থান পেয়েছে। বাংলাদেশ থেকে সাড়ে ৬ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়ে গেছে। তাই বিশ্বের বৃহত্তম দেশকে ডিঙ্গিয়ে বাংলাদেশ আজ শীর্ষ ধনীর তালিকায়।

অনশন চলাকালে ডা. শাহাদাত আরো বলেন, অবৈধ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনের ক্রোধ মিটাতে একেবারেই দিশেহারা। বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা সাজানো মামলায় সাজা দিয়েও মনের ঝাল মিঠছে না। নানামূখি ষড়যন্ত্রের ধারা এখনো অব্যাহত রেখেছে বর্তমান ভোটারবিহীন সরকার। তারা কারাগারে আদালত বসিয়ে নিু আদালতকে ব্যবহার করে গোপন বিচার প্রক্রিয়ায় বেগম জিয়াকে আরেকটি মিথ্যা সাজা দেয়ার ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে। কারাগারে বিচার কাজ পরিচালনা করা আইনের পরিপন্থী ও স্বাধীন বিচার বিভাগের সর্বজনীন নীতিকে অমান্য করা। কারাগারে গোপন আদালত বসানো ক্যাঙ্গারু কোর্টেরই দৃষ্টান্ত। এ সমস্ত আদালত গায়েবী নির্দেশেই পরিচালিত হয়।

উপস্থিত বিএনপির নেতৃবৃন্দ

 

এছাড়াও মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অাবুল হাশেম বক্কর ও কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য সামশুল আলম ও সিনিয়র সহ- সভাপতি অাবু সুফিয়ান, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি আলহাজ্ব এম এ আজিজ, মোহাম্মদ মিয়া ভোলাসহ আরো অনেক নেতৃবৃন্দরা বক্তব্য রাখেন।

এতে আরও উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি‘র হাজী মো: আলী, আশরাফ চৌধুরী, হারুন জামান, সৈয়দ আহামদ, মাহাবুব আলম, নাজিম উদ্দিন আহমেদ, লায়ন কামাল উদ্দিন, ইকবাল চৌধুরী, এড. আবদুস সাত্তার সরওয়ার,এস এম আবুল ফয়েজ, এম এ হান্নান, উপদেষ্টা জাহিদুল করিম কচি, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক, এস এম সাইফুল আলম, যুগ্ম সম্পাদক কাজী বেলাল উদ্দিন,ইসকান্দর মির্জা, ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, আবদুল মান্নান, গাজী মো: সিরাজ উল্লাহ, কোষাধ্যক্ষ সৈয়দ সিহাব উদ্দিন আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম, হাজী মো: তৈয়ব, প্রচার সম্পাদক সিহাব উদ্দিন মুবিন, মহিলা দলের সভাপতি কাউন্সিলর মনোয়ারা বেগম মনি, সিনিয়র সহ সভাপতি ফাতেমা বাদশা, শেখ নুর উল্লাহ বাহার, এ্যাব নেতা ইঞ্জিনিয়ার কে এম সুফিয়ান, নগর বিএনপির সহ সাধারণ সম্পাদক শামছুল আলম(ডক), হাজী সালাহউদ্দিন, আবু জহুর, জহির আহামদ, সম্পাদক বৃন্দ হামিদ হোসেন, হাজী নুরুল আক্তার, ডা: এস এম সারওয়ার, দিদারুল আলম চৌধুরী ইব্রাহীম বাচ্চু, আবদুল নবী প্রিন্স, শহীদুল ইসলাম চৌধুরী, জিয়াউদ্দিন খালেদ চৌধুরী, আবদুল বাতেন, থানা বিএনপির সভাপতি মনজুর রহমান চৌধুরী, হাজী বাবুল হক, মামুনুল ইসলাম হুমায়ুন, মোশারফ হোসেন ডেপটি, কাউন্সিলর মো: আজম, আবদুল্লাহ আল হারুন, নগর বিএনপির সহ সম্পদাকবৃন্দ এ কে খান, আবদুল হালিম স্বপন, মো: সেলিম, রফিকুল ইসলাম, মো: ইদ্রিস আলী, খোরশেদ আলম কুতুবী, মো: শাহজাহান, আজাদ বাঙ্গালী, ইসমাইল বাবুল, ইউনুছ চৌধুরী হাকিম, সফিক আহামদ, আবুল খায়ের মেম্বার, আবদুল হাই, থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদকবৃন্দ আলহাজ্ব জাকির হোসেন, আফতাবুর রহমান শাহীন, সাহাব উদ্দিন, হাজী বাদশা মিয়া, রোকন উদ্দিন মহামুদ, আবদুল কাদের জসিম, নগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এইচ এম রাশেদ খান, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক জেলী চৌধুরী, নগর শ্রমিক দল সভাপতি তাহের আহামদ, ড্যাব নেতা ডা: বেলায়েত হোসেন ডালি, ডা: ফয়েজুল ইসলাম, ২০ দলীয় জোট নেতা আলাউদ্দিন আলী, নগর যুবদলের সি: যুগ্ম সম্পাদক মোশারফ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক এমদাদুল হক বাদশা, ছাত্রদল নেতা শেখ রাশেল, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, জমির উদ্দিন নাহিদ, স্বেচ্ছাসেবক দলের সংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া, তাঁতী দলের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, নগর বিএনপির সদস্য কাউন্সিলর জেসমিনা খানম, আঁখি সুলতানা, জাকির হোসেন, আলী ইউসুফ, মনজুর কাদের মিন্টু, মো: তসলিম হোসেন, মো: ইলিয়াছ, রফিক সরদার, ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি, এস এম মফিজ উল্লাহ, আলাউদ্দিন আলী নূর, আবদুল্লাহ আল সগির, কাজী সামছুল আলম, মনজুর আলম মনজু, এস এম ফরিদুল আলম, জানে আলম জিকু, মো: বেলাল, জামাল উদ্দিন জসিম, মো: ইলিয়াছ, ফারুক আহামেদ, মো: আজম, সাধারণ সম্পাদক, এম এ হালিম বাবলু, জাহেদ উল্লাহ রাশেদ, আলী হায়দার, মনজুরুল কাদের মনজু, হাজী জাহেদ, মাসুদুল কবির রানা, মো: ফিরোজ খান, সিরাজুল ইসলাম মুন্সি, মো: হারুন, আশরাফ খান, জিয়াউর রহমান জিয়া, সৈয়দ আবুল বসর, জসিম মিয়া, আনোয়ার হোসেন আনু, হাজী মো: এমরান, মোস্তাক আহামদ, মনজুর মিয়া, মো: হাসানসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

আগামী অক্টোবরে নির্বাচনকালীন সরকার: ওবায়দুল কাদের

সিটিজি বাংলা, রাজনৈতিক ডেস্ক:

 

মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

 

বাংলাদেশের একাদশ জাতীয় সংসদের জন্য অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে আকারে ছোট একটি সরকার গঠন করা হবে বলে জানিয়েছেন সেতু মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

 

১১ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ সব তথ্য জানান।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করা হবে। এই সরকারে বাইরের কেউ আসবে না। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ করেছি, টেকনোক্রেট কেউ আসবে না, আকারটা ছোট হবে। তবে জাতীয় পার্টি তাদের দু-একজন আরও অন্তর্ভুক্ত করতে বলেছে, অনুরোধ করেছে। সেটাও প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার, তিনি কতটা বিবেচনা করবেন, সেটা এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি। এগুলো আলাপ-আলোচনার পর্যায়ে আছে।

 

আওয়ামী লীগ গতবারের মতো জোটগত নির্বাচন করবে কিনা জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি যদি নির্বাচনে না আসে তাহলে জাতীয় পার্টি আলাদা নির্বাচন করবে। বিএনপি যদি আসে তাহলে জাতীয় পার্টির সঙ্গে আসনবণ্টন, সমঝোতা হবে। সবকিছু নির্ভর করছে মেরুকরণ কীভাবে হবে, সেভাবেই অ্যালায়েন্সের সমীকরণ হবে।

 

তিনি জানান, বিতর্কিতরা আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবে না। এখনো মনোনয়ন দেওয়া হবে এমন সিদ্ধান্ত কোনো প্রার্থীকে জানানো হয়নি। যাদের অবস্থান জনগণের কাছে ভালো, তাদের কিছু টিপস দেওয়া হয়েছে। আরো গণমুখী প্রচারণার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

 

বিএনপির নেতৃত্বের মধ্যে ঐক্য নেই দাবি করে সরকারবিরোধী আন্দোলন গড়ে তুলতে দলটির নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যের যে ডাক দেয়া হয়েছে তা সফল হবে কি না তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

 

এ সময় মন্ত্রী কাদের বলেন, বিএনপির ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের কথা বলে। তাদের নিজের ঘরেই তো ঐক্য নেই। তারা নিজেদের অফিসেই একে অন্যকে সরকারের এজেন্ট বলে। যারা নিজেরা ঘরেই ঐক্যবদ্ধ নয়। তারা কিভাবে জাতীয় ঐক্য গড়বে? আওয়ামী লীগ দেশের সবচেয়ে বড় দল। আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে এদেশে জাতীয় ঐক্য কীভাবে হয়? আর আওয়ামী লীগ না থাকলে অন্য অনেক দলও তাদের সঙ্গে যাবে না। তাদের আন্দোলন গত ১০ বছরে হয় নাই, আর আগামী দুই মাসেও হবে না।

 

খালেদা জিয়ার চিকিৎসার নামে বিএনপি রাজনীতি করার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করে ওবায়দুল কাদের অভিযোগ করে বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসা আসলে বিষয় নয়। তাঁর অসুস্থতা নিয়ে বিএনপি রাজনীতি করতে চাইছে। এর মাধ্যমে তাদের আন্দোলনের ব্যর্থতাকে সফলতায় রূপ দিতে চাইছে বিএনপি। বিএনপি জাতীয় ঐক্য নয়, জাতীয়তাবাদী সাম্প্রদায়িক ঐক্য করতে চাইছে। আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে কোনো জাতীয় ঐক্য হতে পারে না। আওয়ামী লীগবিহীন জাতীয় ঐক্য হলো জাতীয়তাবাদী সাম্প্রদায়িক ঐক্য। এর সঙ্গে দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের কোনো সম্পর্ক থাকবে না কোন দিন।