চট্টগ্রামের পাঠকপ্রিয় অনলাইন

শিক্ষা

মেরিন একাডেমী স্কুল এন্ড কলেজের প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের ১ম পূর্ণমিলনী উদযাপন

মোজাম্মেল হক, আনোয়ারা প্রতিনিধি :

মেরিন একাডেমী স্কুল এন্ড কলেজের প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের ১ম পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২৩ নভেম্বর শুক্রবার দিনব্যাপি নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

একাডেমী স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে ‘উৎসবে আনন্দে, ‘পুরনো বন্ধু, হারানো দিন, স্মৃতি ছবিরা, আজও রঙ্গিন’ চলো ফিরে যাই শৈশবে’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে প্রাক্তন ছাত্র ছাত্রী পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীরা। স্কুল এন্ড কলেজের অনুষ্ঠান ঘিরে নতুন সাজে সেজেছিল চারপাশ। প্রিয় ক্যাম্পাসের আঙ্গিনায় হাজারো স্মৃতি ঘেরা পুরানো বন্ধুদের দীর্ঘদিন পর একসাথে দেখা মিলে আনন্দে হৈ হুল্লায় মেতে উঠেছে স্কুল আঙ্গিনা।

পুনর্মিলনী বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ক্যাপ্টেন খোরশেদুল আলম এর সভাপতিত্বে ও সহকারী সমন্বয়ক মিজানুর রহমানের সঞ্চলনায় উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ মেরীন একাডেমীর কমান্ড্যান্ট নৌ প্রকৌশলী ডঃ সাজিদ হোসেন, চট্টগ্রাম মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের সচিব প্রফেসর শওকত আলম, সাবেক এমপি ও উপজেলা চেয়ারম্যান উকিল শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী, সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ সোয়েব খান, বাংলাদেশ মেরীন একাডেমীর ডেপুটি কমান্ড্যান্ট কাজী এবিএম শামিম, মেরিন একাডেমী স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি আবুল কালাম খাঁন, অধ্যক্ষ নাছির উদ্দীন, ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সোলায়মান, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মরিয়ম বেগম, আনোয়ারা সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ রিদুয়ানুল হক, কাফকো স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল মজিদ, মোবারক মিয়া, নোয়াব আলী, নবী চেয়ারম্যান, জসীম উদ্দীন চৌধুরী সহ আরও অনেক।

উক্ত অনুষ্ঠানের ২য় পর্বে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশগ্রহণ করেন প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীগণ ও বিভিন্ন ব্যান্ড শিল্পীরা৷

চট্টগ্রামসহ সারা দেশে প্রাথমিক ও এবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষা শুরু

সিটিজি বাংলাঃ

চট্টগ্রাম সহ সারাদেশে ১৯ নভেম্বর রোববার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে শুরু হয়েছে প্রাথমিক-ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা। প্রথম দিন উভয়স্তরে ইংরেজি বিষয়ের পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে।

পরীক্ষা চলবে ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত।  এবার সাত হাজার ৪১০টি কেন্দ্রে ৩০ লাখ ৯৫ হাজার ১২৩ জন ক্ষুদে শিক্ষার্থীর মধ্যে চট্টগ্রাম থেকে অংশ নিচ্ছে এক লাখ ৪৫ হাজার ৫৬৩ জন শিক্ষার্থী।

জানা গেছে, এ বছর সারাদেশে প্রাথমিক সমাপনীতে ২৭ লাখ ৭৭ হাজার ২৭০ জন এবং ইবতেদায়িতে তিন লাখ ১৭ হাজার ৮৫৩ জন পরীক্ষা দিবে। এবার ছাত্রদের চেয়ে ছাত্রী সংখ্যা দুই লাখ ১৯ হাজার ৭৮৬ জন বেশি । গত বছর ২৮ লাখ চার হাজার ৫০৯ জন খুদে শিক্ষার্থী প্রাথমিক সমাপনী এবং দুই লাখ ৯১ হাজার ৫৬৬ জন ইবতেদায়ি পরীক্ষার্থী ছিল।

অক্সফোর্ড মডার্ন স্কুল এন্ড কলেজের বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সম্পন্ন

মো. নাজমুলঃ

অক্সফোর্ড মডার্ন স্কুল এন্ড কলেজের বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ অক্সফোর্ড মডার্ন স্কুল এন্ড কলেজের বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে।

১১ নভেম্বর রোববার সকাল ৯ টা থেকে নগরীর জামালখানস্থ রীমা কমিউনিটি সেন্টারে দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন কোতয়ালী জোনের সিনিয়র অ্যাসিস্ট্যান্ট পুলিশ কমিশনার জাহাঙ্গীর আলম।

প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের চেয়ারম্যান ড. আমীর মুহাম্মদ নসরুল্লাহ।

বিশেষ অতিথি ছিলেন, কাউন্সিলর মোহাম্মদ জাবেদ, কাউন্সিলর হাজী জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, সদরঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন, বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি চট্টগ্রাম শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতি সাহাব উদ্দিন, কাউন্সিলর আলহাজ্ব আব্দুল কাদের, সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র মোহাম্মদ হোসেন, পিআইবি চট্টগ্রাম জেলা’র ইন্সপেক্টর (প্রশাসন), আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা’র গ্লোবাল অ্যাম্বাসেডর মতিউর রহমান সৌরভ।

এসময় স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা নাচে গানে মাতিয়ে তোলেন বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

রোববারের জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা স্থগিত

সিটিজি বাংলাঃ

আগামীকার রোববার অনুষ্ঠেয় জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। স্থগিত এ পরীক্ষা ৯ নভেম্বর শুক্রবার সকাল নয়টায় অনুষ্ঠিত হবে। ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তপন কুমার সরকার প্রথম আলোকে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে এ পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।

তবে বোর্ডের কর্মকর্তারা জানাতে পারেননি, কেন পরীক্ষা পেছানো হয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেছেন, কওমি শিক্ষার সর্বোচ্চ স্তর দাওরায়ে হাদিসকে স্নাতকোত্তরের সমমান দেওয়ায় রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে কাল রোববার এক শোকরানা মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। ‘আল-হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’–এর উদ্যোগে এ আয়োজন করা হয়েছে। এই মাহফিলের কারণে রাজধানী ঢাকায় প্রচুর জনসমাগম থাকবে। এতে কোনো পরীক্ষার্থী যেন প্রতিবন্ধকতার মুখে না পড়ে, সে কারণে পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।

১ নভেম্বর থেকে সারা দেশে জেএসসি–জেডিসি পরীক্ষা শুরু হয়েছে। এবার পরীক্ষার্থী প্রায় পৌনে ২৭ লাখ। প্রথম আলো

প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তঃ বিভাগীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতা সম্পন্ন

মু. মেহেদি রহমান :

প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় বিতর্ক সংগঠন প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটি আয়োজিত “ফার্স্ট পিইউডিএস গেইটওয়ে ২০১৮” এর দ্বিতীয় পর্ব “আন্তঃ বিভাগীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতা” এর চূড়ান্ত পর্ব ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান আজ ১লা নভেম্বর,২০১৮ ইংরেজি অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় এর ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের সহকারী ডীন জনাব মঈনুল হক। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটি এর চীফ মডারেটর মিসেস জুলিয়া পারভীন।

এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় এর ব্যবস্থাপনা বিভাগের সম্মানিত চেয়ারম্যান সুজন কান্তি বিশ্বাস। বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটির মডারেটরবৃন্দ সঞ্জয় বিশ্বাস,হিল্লোল সাহা,সৈয়দ মিনহাজ হোসেন ,নিলুফার সুলতানা,সাইফুদ্দিন মুন্না এবং কানিজ ফাতেমা। আলোচনা পর্ব শেষে চূড়ান্ত পর্বের বিতর্কের ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

উল্লেখ্য, চূড়ান্ত পর্বে তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগ ও হিসাববিজ্ঞান বিভাগ উত্তীর্ণ হয় এবং তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগ চূড়ান্ত পর্বের বিতর্কে ৫-০ ব্যালটে জয়ী হয়। “ডিবেটার অফ দ্যা টুর্নামেন্ট” হিসেবে নির্বাচিত হন হিসাববিজ্ঞান বিভাগের রিদোয়ান সিদ্দিক। ফলাফল ঘোষণার পর সম্মানিত অতিথিবৃন্দ বিজয়ী দল এবং রানার আপ দলের হাতে পুরষ্কার তুলে দেন।

দৃষ্টির আড্ডায় নিজের বেড়ে উঠার গল্প শুনালেন ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী

মু. মেহেদি রহমানঃ

দৃষ্টি চট্টগ্রামের আয়োজনে এবং রোটারী ক্লাব অব মোট্রেপলিটন চিটাগাং এর সহযোগিতায় দৃষ্টি আড্ডার ৬ষ্ঠ পর্বে নিজের বেড়ে উঠার গল্প এবং একই সাথে দেশ ও সমাজ নিয়ে নিজের অনুভূতি বললেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য বিশিষ্ট সমাজ বিজ্ঞানী ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। আড্ডার শুরুতেই অতিথির মঙ্গল কামনা করে গান পরিবেশন করেন বনকুসুম বডুয়া নুপুর ও তমা দেবী।

২০১৮ এতে দাডিয়ে ২০৫০ সালে কেমন চেট্টগ্রাম প্রত্যাশা করেন এই রকম এক প্রশ্নের উত্তরে ড. ইফতেখার বলেন, টেকনোলজি ভাল ভাবে ব্যবহার করে ২০৫০ এ এডভান্সড বাংলাদেশ তৈরির স্বপ্ন দেখেন। একই সাথে ২০৫০ সালের চট্টগ্রামও হবে একটি আধুনিক এবং পরিবেশবান্ধব শহর। আমাদের সময় আমরা যেভাবে যানজটবিহীন সবুজ চট্টগ্রামে বড় হয়েছি সেই সাথে যদি ১৯৬১ সালে প্রস্তাবিত মাস্টারপ্ল্যান অনুসারে পরিকল্পিত নগরায়নের মাধ্যমে চট্টগ্রামকে গড়ে তোলা যায়, তাহলে এটিই হবে আমার প্রত্যাশার চট্টগ্রাম।

সম্প্রতি চটগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণাক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সাফল্য দেখাচ্ছে এর পেছনের গল্পটা আসলে কেমন ছিল উল্লেখ্য করে তিনি বলেন আমি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এর উপাচার্যের দাযিত্ব নেয়ার আগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা খাতে মোট বরাদ্দ ছিল মাত্র ১০ লক্ষ টাকা যা কিনা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই অপ্রতুল। এটি এখন বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় সাড়ে ১০কোটি টাকা ছাড়িয়েছে যার ফলশ্রুতিতে প্রায় ১০৩টি গবেষণা কাজ শেষ পর্যায়ে। ইতিমধ্যে অনেক গুলো গবেষণাপত্র বিশ্বখ্যাত “ন্যাচার” সাময়িকী সহ প্রসিদ্ধ জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে এবং প্রশংসিত হয়েছে।

তরুণ প্রজন্ম কিভাবে সমাজে নিজেদের ভূমিকা যথাযথ ভাবে পালন করতে পারে বলে আপনি মনে করেন? এমন এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন “বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার ধারণাটা কিন্তু খুব মৌলিকঃ বাংলাদেশের প্রতিটি দরিদ্র মানুষ যাতে মোটা চালের ভাত আর মোটা কাপড় গায়ে দিয়ে সুখে থাকতে পারে। দেশের মোট জনসংখ্যার ৩২ ভাগ যে তরুণ সম্প্রদায়, তাদেরকে নিজেদের যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে সোনার বাংলা গড়ে তোলার জন্য। তিনি বলেন “তরুণ প্রজন্মের উচিত গবেষণাধর্মী কাজে নিজেদের নিয়োজিত করা যার মাধ্যমে সমাজে বিভিন্ন চলমান কর্মকান্ডে প্রভাব কিভাবে কাজ করছে তা হতে ধারণা নিয়ে উদ্ভাবনধর্মী কাজে নিজেদের নিয়োজিত করতে পারবে।” দেশ প্রেম কি এটা বুজা যাবে দেশের বাইরে গেলে, দেশের প্রতি, বাড়ির প্রতি টান, নাড়ির টান, দেশপ্রেম এগুলো ফুটে ওঠে আমার জাপান বসবাসের সময়।

তিনি দৃষ্টি চট্টগ্রামের প্রশংসা করে বলেন সমাজকে আলোকিত করতে এবং নেতৃত্ব তৈরীতে দৃষ্টি গত ২৬ বছর ধরে নিরলস ভাবে যে কাজ করে আগামীর চট্টগ্রাম তা অবশ্যই শ্রদ্ধার সাথে মনে রাখবে। দৃষ্টির চিন্তা, চেতনা, মুক্তবুদ্ধির চর্চা, দেশ নিয়ে ভাবনা একটি সুন্দও সমাজ বিনিমার্ণে সহায়ক হবে। তিনি আড্ডা প্রসঙ্গে বলেন তরুণদের আড্ডা থেকেই শুরু হয় সৃষ্টিশীল এবং সৃজনশীল কাজ গুলো।

আড্ডার শুরুতেই বক্তব্য রাখেন দৃষ্টি চট্টগ্রামের সভাপতি মাসুদ বকুল, কবি ও গল্পকার জিন্নাহ চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় জেনেটিং ইঞ্জিনিয়ারিং ও বায়োটেনোলজি বিভাগের শিক্ষক ড. আদনান মান্নান, রোটারীয়ান ছাইফুল হুদা সিদ্দিকী, রোটারী ক্লাব অব মোট্রেপলিটন চিটাগাং এর সভাপতি কাফউদ্দিন মাহমুদ রিপন, চিকিৎসক ও উপস্থাপক ডা: একিউএম মহিউদ্দিন মাসুম, দৃষ্টির সাধারণ সম্পাদক সাবের শাহ, যুগ্ম সম্পাদক সাইফুদ্দিন মুন্না ও সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী আরফাত। আড্ডার ফাঁকে ফাঁকে আবৃত্তি ও গান পরিবেশন করেন দৃষ্টির সদস্য অর্নিবাণ বড়ুয়া, হাসান জাদিদ মাশরুখ, মুমু দাশ।

দেশের  সীমানা ছাড়িয়ে রোটারেক্ট ক্লাব অব ইসলামাবাদের ‘ইন্টারন্যাশনাল জয়েন্ট বুলেটিন-চেরাগ’ প্রকাশ

মু. মেহেদি রহমানঃ

সময়ের সাথে সাথে দূরদেশ যেমন নিকট হয়ে উঠছে, ঠিক তেমনিভাবে দূরদেশের মানুষগুলো আর পর থাকছে না।তথ্য প্রযুক্তির কল্যাণে সহজতর মাধ্যমে যোগাযোগ এবং সম্পর্ক তৈরি ন্যূনতম সময়ের ব্যাপার মাত্র। তারই প্রমাণ রোটারেক্ট ক্লাব অব ইসলামাবাদ বাংলাদেশের সারা বিশ্বের ২০ টি দেশের ২৮ টি রোটারেক্ট ক্লাবকে সাথে নিয়ে আন্তর্জাতিক মাসিক প্রতিবেদন যা ‘ইন্টারন্যাশনাল জয়েন্ট বুলেটিন’ নামে পরিচিত।
রোটারি ইন্টারন্যাশনাল ডিস্ট্রিক নং ৩২৮২, ২৫ বছরের  ঐতিহ্যবাহী রোটারেক্ট  ক্লাবের আহ্বানে  মালয়েশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, তুরস্ক, মিশর, ভারত, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, ইথিওপিয়া, মাদাগাস্কার, ফিলিপাইন, বসনিয়া, হংকং, তিউনিশিয়া,  ব্রাজিল, ইতালি, মোনাকো, মেক্সিকো, নাইজেরিয়া, রোমানিয়া, বাহামার ২৮ টি ক্লাব তাদের তাদের মাসিক প্রতিবেদনগুলোর সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে এ প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়।
রোটার‍্যাক্ট ক্লাব অব ইসলামাবাদ এর সাবেক প্রেসিডেন্ট জাহেদ সাঈদের উদ্ভাবিত  “চেরাগ” নামক এই প্রজেক্টটির নেতৃত্বে ছিলেন ক্লাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট, বিশিষ্ট আইটি বিশেষজ্ঞ, আব্দুল মান্নান আসিফ। কো-অর্ডিনেটর হিসেবে ছিলেন একই ক্লাবের প্রফেশনাল সার্ভিস ডিরেক্টর নিলয় চক্রবর্তী এবং রোটার‍্যাক্ট ক্লাব অব কুয়ালালামপুর এর ইন্টারন্যাশনাল ও কো-কমিউনিটি সার্ভিস  ডিরেক্টর পারধিবান পিল্লাই বেন।
সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন রোটার‍্যাক্ট ক্লাব অব ইসলামাবাদের প্রেসিডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ মিশকাত, রোটার‍্যাক্ট ক্লাব অব জেনেভার সাবেক প্রেসিডেন্ট ডিডিআর ডাঃ ফেড্রিকো মারিয়া ববলিও এবং রোটার‍্যাক্ট ক্লাব অব কুয়ালালামপুরের প্রেসিডেন্ট জারিফ বিন রোস্তম।এ বুলেটিনের মাধ্যমে প্রকাশের মধ্য দিয়ে নিজ দেশের পতাকা পৃথিবীর কাছে আরেকবার তুলে ধরতে পেরে পেরে উচ্ছ্বসিত রোটারেক্ট  ক্লাব অব ইসলামাবাদের সকল সদস্য।
উল্লেখ্য, বুলেটিনের সূচনায় রোটারী ইন্টারন্যাশনাল ২০১৮-১৯ এর প্রেসিডেন্ট ব্যারি রাশিন বলেন,  “রোটার‍্যাক্ট হচ্ছে খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি শক্তি।  বিশ্বব্যাপী রোটারী আন্দোলনের রয়েছে প্রায় ২৫০০০০ তরুণ নেতৃত্ব।  যারা তাদের দক্ষতা আর আবেগের দ্বারা বিশ্বকে পরিবর্তনের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। রোটারী এবং রোটার‍্যাক্টররা শুধুমাত্র স্বপ্নচারী নয়, তারা দক্ষ কর্মীও। তারা জনগণের জন্য একত্রে কাজ করে যাচ্ছে।”

সক্রেটিস গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে ছিলেন না : ড. অনুপম সেন

মু. মেহেদি রহমানঃ

সক্রেটিস গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে ছিলেন না বলে মন্তব্য করেছেন প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন। সম্প্রতি ঢাকা ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটি (ডিইউডিএস) এবং একশনএইড বাংলাদেশ আয়োজিত ‘ন্যাশনাল ডিবেট ক্যাম্পেইন-২০১৮’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ড. অনুপম সেন বলেন, তর্ক বহু পুরনো শিল্প। পাশ্চাত্য সভ্যতার ভিত্তিভূমি প্রাচীন গ্রীসের এই শিল্পে বিশাল অবদান রয়েছে। সেখানে তর্ক হতো। গ্রীসে সক্রেটিসকে যে বিচারের সম্মুখিন করা হয়েছিল, সেখানে ৫০০ জুরার ছিলো এবং তাদের মধ্যে সক্রেটিসের দণ্ড নির্ণয়ের ব্যাপারে অনেক তর্ক চলেছিল। সক্রেটিসকে মুখ্যত গণতন্ত্রবিরোধী হিসেবে চিহ্নিত করে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। যদিও প্রকৃত অর্থে তিনি গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে ছিলেন না। এ বিষয়ে সক্রেটিসের ছাত্র প্লেটোর অসাধারণ গ্রন্থ রয়েছে। এই কারণে প্লেটো গণতন্ত্রের পরিবর্তে দার্শনিক পরিচালিত রাষ্ট্র চেয়েছেন তাঁর প্রসিদ্ধ গ্রন্থ রিপাবলিকে।

প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটির সার্বিক সহযোগিতায় দিনব্যাপী দামপাড়ার বিশ্ববিদ্যালয় ভবনে এই ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হয়। ‘গৃহস্থালি সেবামূলক কাজ’ বিষয়ে আয়োজিত চট্টগ্রাম অঞ্চলের এই বিতর্ক প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসা-শিক্ষা অনুষদের অ্যাডজাঙ্কট ডিন প্রফেসর ড. মোয়াজ্জম হোসেন। ঢাকা ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটির সম্পাদক আবদুল্লাহ আসাদের সঞ্চালায় ও সভাপতি এস এম রাকিব সিরাজীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. তৌফিক সাঈদ, ব্যবসা-শিক্ষা অনুষদের সহকারী ডিন মঈনুল হক, পতেঙ্গা সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিলুর রহমান, দৃষ্টি চট্টগ্রামের সভাপতি মাসুদ বকুল ও প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটির চিফ মডারেটর জুলিয়া পারভীন।

উপস্থিত ছিলেন একশনএইড বাংলাদেশের প্রোগ্রাম অফিসার নূরে জান্নাত প্রমা ও দৃষ্টি চট্টগ্রামের সিনিয়র সহ-সভাপতি সাইফ চৌধুরী। প্রতিযোগিতায় বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের ১৬টি দল অংশগ্রহণ করে। বিতর্কে চ্যাম্পিয়ন হয় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও রানার-আপ হয় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ। বারোয়ারি বিতর্কে ১ম,২য় ও ৩য় স্থান অর্জন করেন যথাক্রমে সরকারি কমার্স কলেজের শিক্ষার্থী জারিন তাসনিম রাইসা, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী আততিহারুল কবির তিহার ও ফারহাত ইসলাম।

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ

সিটিজি বাংলাঃ

সরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস কোর্সের প্রথম বর্ষের (২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষ) ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। জাতীয় মেধার ভিত্তিতে সরকারি ৩৬টি মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য ৪ হাজার ৬৮ জন ভর্তিচ্ছু নির্বাচিত হয়েছেন। আর অপেক্ষমান রাখা হয়েছে ৫০০ জনকে।

রবিবার এ ফল প্রকাশ করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মেডিকেল শিক্ষা বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. আবদুর রশিদ। তিনি বলেন, পরীক্ষায় প্রাপ্ত সর্বোচ্চ নম্বর ৮৭ ও সর্বনিম্ন ৫৭।

এর আগে, গত শুক্রবার দেশজুড়ে বিভিন্ন কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। আবেদনকারী ৬৫ হাজার ৯১৯ জনের মধ্যে ৬৩ হাজার ২৬ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্র জানায়, জাতীয় মেধাতালিকার ভিত্তিতে নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের কাছে এসএমএসের মাধ্যমে ফল পৌঁছে যাচ্ছে। এছাড়া স্বাস্থ্য অধিদফতরের ওয়েবসাইট থেকেও ফল জানা যাবে।

জানা গেছে, এবার ১০০ নম্বরের নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্নপত্রে ভর্তি নেওয়া হয়। পরীক্ষায় পাস নম্বর ৪০। ৪০ নম্বর পেয়ে সরকারি ও বেসরকারি উভয় মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য নির্বাচিত হয়েছেন ২৪ হাজার ৯৬৮ জন শিক্ষার্থী।

চট্টগ্রামে জুনিয়র ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলন শুরু

মু. মেহেদি রহমান:
“সভ্যতা বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের সমাজ ব্যবস্থাপনায় অনেক পরিবর্তন হয়েছে। সত্তরের দশকের দিকে তথ্যপ্রযুক্তি এত উন্নত ছিল না। বর্তমান সমাজ ব্যবস্থায় তথ্যপ্রযুক্তি অনেক উন্নত।
এ সময়ের শিক্ষার্থীরা তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারকে কাজে লাগিয়ে আরও উন্নতির শিখরে পৌঁছতে পারবে।”,
রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা’ নিয়ে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে শুরু হলো তিন দিনের জুনিয়র ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. অনুপম সেন। দৃষ্টি চট্টগ্রাম আয়োজিত সম্মেলন উদ্বোধন করেন প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. অনুপম সেন।
অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম ক্লাবের সাবেক সভাপতি ডা. মঈনুল ইসলাম মাহমুদ। দৃষ্টি চট্টগ্রামের সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন দৃষ্টি চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক সাবের শাহ, যুগ্ম সম্পাদক সাইফুদ্দিন মুন্না ও জুনায়েদ কৌশিক চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী আরফাত ও সম্মেলনের মহাসচিব রিদোয়ান আলম আদনান।
সম্মেলনে ৭টি কমিটিতে দেশ-বিদেশের স্কুল ও কলেজের ২১৭ জন শিক্ষার্থী ছায়া কূটনীতিক হিসেবে বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন।
জাতিসংঘ সম্মেলনের আদলে ছায়া সম্মেলনে তরুণ শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণের মাধ্যমে কূটনৈতিক দক্ষতা, দূতিয়ালি যোগাযোগ ও জাতিসংঘের কার্যক্রম সম্পর্কে বাস্তব অভিজ্ঞতা অর্জনে সমর্থ হবে।
ডা. মঈনুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, দৃষ্টি চট্টগ্রাম বাংলাদেশের অনন্য বিতর্ক সংগঠন। যারা বিতর্ক করে তারা সমাজের নৈতিক অবক্ষয় থেকে দূরে থাকে। যারা বিতর্ক করে তারা খুবই বুদ্ধিমান হয়।
সম্মেলনে সহযোগিতা করছে নাগরিক টেলিভিশন, বারকোড ক্যাফে, রেডিও ফুর্তি, স্টার ইয়ুথ ও প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়।